বিস্ময়ের শেষ নেই আর অশ্বিনের বোলিংয়ে। অফস্পিনার হয়েও শেষ আইপিএলে লেগস্পিন বোলিং করে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন। এ বার তামিলনাড়ু প্রিমিয়ার লিগে বিস্ময় ডেলিভারি করে চমকে দিলেন তিনি। 

টিএনপিএলের একটি ম্যাচে অশ্বিনকে দেখা যায় শরীরের পিছনে হাত লুকিয়ে বল করতে আসছেন। তার পরে বোলিং ক্রিজের সামনে এসে হঠাৎই আলতো করে বল ছেড়ে দেন। উঁচু হয়ে বল গিয়ে পড়ে ব্যাটসম্যানের সামনে। যেন ললিপপ ঝুলিয়ে দিয়েছেন তিনি যে, মারো আমাকে কেমন পারো দেখি। ব্যাটসম্যান সেই প্রলোভনে পা দিয়ে মারতে যান এবং লং-অনে ক্যাচ দিয়ে আউট। স্লো মোশনে দেখে বোঝা যায়, অশ্বিন বলের গতি এত কমিয়ে দিয়েছিলেন ঝুলিয়ে ডেলিভারি করে যে, মেরে ওড়াতেই পারেননি ব্যাটসম্যান। 

অশ্বিনের এই বিস্ময় ডেলিভারি নিয়ে রীতিমতো চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে ক্রিকেট দুনিয়ায়। টুইটারে ছড়িয়ে পড়ে এই বলটির ভিডিয়ো। তার পর ক্রিকেট ভক্তরা এ নিয়ে মন্তব্য করতে শুরু করেন। অনেকে বলতে থাকেন, নতুন এক অস্ত্র এসে গিয়েছে ভারতের তারকা স্পিনারের হাতে। এ বার তা দিয়েই তিনি প্রতিপক্ষকে ধ্বংস করতে চলেছেন। ভঙ্গি দেখে মনে হয়েছে, তিনি স্বাভাবিক অ্যাকশনের মতো পুরো হাত ঘুরিয়ে বলটি করছেন না। পিছন থেকে হাতটিকে সামনে এনেই আলতো করে ঝুলিয়ে বলটি ফেলে দিচ্ছেন ক্রিজে।

সেই বিস্ময় বল। কোমরের পিছনে হাত লুকিয়ে দৌড়ে এসে বলটি ছাড়েন অশ্বিন। মন্থর গতিতে ঝুলিয়ে দেওয়া বল মারতে গিয়ে আউট ব্যাটসম্যান। গ্রাফিক: দীপাঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায়

যে-হেতু হাতটিকে ঢেকে তিনি বল করতে আসছেন, ব্যাটসম্যানের পক্ষে ধরা কঠিন হচ্ছে। জানা গিয়েছে, টিএনপিএলের একাধিক ম্যাচে এই নতুন ডেলিভারি করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন অশ্বিন। তবে শেষ ম্যাচেই শুধু এই বিশেষ ডেলিভারিতে উইকেট তুলতে পেরেছেন। বলটি করতে দেখে প্রথমে অনেকেই হকচকিয়ে যান। কেউ কেউ ভাবছিলেন, আইপিএলে জস বাটলারের মতো এখানেও ব্যাটসম্যানকে মাঁকড়ীয় ভঙ্গিতে আউট করতে চলেছেন নাকি অশ্বিন? পরে অবশ্য দেখা যায়, তাঁর মতলব অন্য। 

অফস্পিনার হলেও নানা ধরনের ডেলিভারি নিয়ে পরীক্ষা করায় সুনাম রয়েছে অশ্বিনের। ক্যারম বলের মাস্টার বলে পরিচিত ছিলেন একটা সময়ে। এখন যদিও অনেকেই ক্যারম বল করতে পারেন। আইপিএলে লেগস্পিন করানো শুরু করেছিলেন। এই নতুন অস্ত্র টিএনপিএলের বাইরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বা আইপিএলেও প্রয়োগ করেন কি না, সেটাই এখন দেখার। 

আইপিএলে কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের অধিনায়ক অশ্বিন। তবে ভারতের সীমিত ওভারের দল থেকে ছিটকে গিয়েছেন। দু’বছর আগে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেলার পরে আর তাঁর জন্য দরজা খোলেনি ভারতীয় ওয়ান ডে দলের। টি-টোয়েন্টিতে ধারেকাছেও নেই তিনি। রিস্টস্পিনার কুলদীপ যাদব এবং যুজবেন্দ্র চহালই এখন কোহালিদের সীমিত ওভারের স্পিন অস্ত্র। তাঁদের সঙ্গে রয়েছেন বাঁ হাতি রবীন্দ্র জাডেজা এবং হার্দিক পাণ্ড্যর দাদা ক্রুনাল। এ বার দলে এসেছেন মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে শেষ আইপিএলে নজর কাড়া লেগস্পিনার রাহল চহার। তাই ভারতের নীল জার্সিতে ওয়ান ডে বা কুড়ি ওভারের খেলায় অশ্বিন এই নতুন অস্ত্রের ভেল্কি দেখানোর সুযোগই হয়তো পাবেন না। তবে টিএনপিএলের হাত ধরে আইপিএলে নতুন চমক হিসেবে দেখা যেতেই পারে এই বিস্ময় ডেলিভারি।