ওয়ান ডে ক্রিকেট থেকে আরও এক কিংবদন্তির অবসর। 

শুক্রবার কলম্বোয় বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সিরিজের প্রথম ওয়ান ডে-র শেষে অবসর ঘোষণা করলেন লাসিথ মালিঙ্গা। জীবনের শেষ ওয়ান ডে ম্যাচেও তিনি ম্যাচউইনার। শেষ ম্যাচে তাঁর বোলিং পরিসংখ্যান ৯.৪-২-৩৮-৩। শ্রীলঙ্কাকে ৯১ রানে বড় ভূমিকা নিলেন ক্রিকেটবিশ্বের ইয়র্কার-সম্রাট।

মালিঙ্গার অবসরের দিনে তাঁর মুম্বই ইন্ডিয়ান্স দলের অধিনায়ক রোহিত শর্মা টুইট করেছেন, ‘‘যদি আমাকে বলা হয় শেষ দশকে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের একজন ম্যাচউইনার বেছে নিতে, সবার আগে আমি মালিঙ্গার নামই বলব। নেতৃত্ব দেওয়ার সময় অনেক কঠিন মুহূর্তে ও আমাকে স্বাভাবিক ভাবে নিঃশ্বাস নিতে সাহায্য করেছে। কখনও হতাশ করেছে বলে মনে পড়ে না। দলের মধ্যে ওর উপস্থিতিই চাপ কমিয়ে দিত। ভবিষ্যতের জন্য অনেক শুভেচ্ছা। ভাল থেকো মালিঙ্গা।’’

জীবনের শেষ ওয়ান ডে ম্যাচেও ইয়র্কারে বিপক্ষের দুই সেরা অস্ত্রকে ধরাশায়ী করেছেন মালিঙ্গা। বাংলাদেশ ইনিংসের প্রথম ওভারেই তাঁর ইয়র্কারে শরীরের ভারসাম্য রাখতে না পেরে পড়ে যান তামিম ইকবাল। লেগস্টাম্প উড়িয়ে নিয়ে চলে যায় সেই ইয়র্কার। সৌম্য সরকারও বোল্ড হন মালিঙ্গার ইয়র্কারেই। রাউন্ড দ্য উইকেট থেকে মালিঙ্গার করা ইয়র্কার সামলাতে পারেননি সৌম্য। উইকেটে আছড়ে পড়ে সেই বল। মুস্তাফিজ়ুর রহমানকে ফিরিয়ে দলের জয় সম্পূর্ণ করেন শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তি পেসার। 

সতীর্থের অবসরে রোহিতের মতোই টুইট করেছেন ভারতীয় পেসার যশপ্রীত বুমরা। মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে দীর্ঘদিন একসঙ্গে খেলেছেন। মালিঙ্গাকে প্রায় গুরু হিসেবেই দেখেন ভারতীয় পেসার। তাঁর টুইট, ‘‘ক্রিকেটকে অন্য মাত্রায় পৌঁছে দিয়েছ তুমি। তুমি খেলায় উপকৃত হয়েছে ক্রিকেট। অসাধারণ ভাবে শেষ করলে মালি। অবসর জীবন ভাল করে উপভোগ করো।’’

 এ দিন প্রথমে ব্যাট করে ৫০ ওভারে আট উইকেট হারিয়ে ৩১৪ রান করে শ্রীলঙ্কা। জবাবে ৫০ বল বাকি থাকতে ২২৩ রানে অলআউট বাংলাদেশ। ৯৯ বলে ১১১ রান করে ম্যাচের সেরা কুশল পেরেরা। বিশ্বকাপে দু’টি হ্যাটট্রিকের পাশাপাশি ২২৬ ম্যাচে ৩৩৮ উইকেট রয়েছে তাঁর। শ্রীলঙ্কার সর্বোচ্চ উইকেট সংগ্রাহকদের তালিকায় তৃতীয় স্থানে।  মালিঙ্গা বলেন, ‘‘অবসর নেওয়ার এটাই সঠিক সময়। ২০২৩ বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে শ্রীলঙ্কা দলের এগোনো উচিত। আগামী প্রজন্মের বোলারদের মধ্যে প্রতিভার অভাব নেই। কিন্তু ওদের ম্যাচউইনার হয়ে ওঠার সময় দিতে হবে।’’