রিয়ো অলিম্পিক্সে ব্রোঞ্জ পদকজয়ী সাক্ষী মালিক পারেননি। চোট সারিয়ে ফিরেও কোয়ার্টার ফাইনালে হেরে যান হরিয়ানার ‘পালোয়ান’। কিন্তু চমকে দিলেন বিনেশ ফোগত। ৫৩ কেজিতে সোনা জিতলেন। গত সপ্তাহেই স্পেনের একটি টুর্নামেন্টেও তিনি সোনা জেতেন।  হরিয়ানারভিওয়ানির মেয়ে এ বার চূড়ান্ত সাফল্য পেলেন ইস্তানবুলে। কুস্তি পরিবারে বড় হওয়া বিনেশ বড় হয়েছেন দেশের দুই সেরা কুস্তিগির তাঁর তুতো বোন গীতা ফোগত ও ববিতাকুমারীর সঙ্গে অনুশীলন করে। জাকার্তা এশিয়াড এবং কমনওয়েলথ গেমসে পরপর সোনা জিতে চমকে দিয়েছিলেন। স্পেন, ইস্তানবুলেও বিনেশের সাফল্য নিয়ে সবাই নিশ্চিত ছিলেন। 

ইস্তানবুলে ইয়াসের ডোগু আন্তর্জাতিককে বিনেশ ৯-৫ পয়েন্টে হারালেন রাশিয়ার একতারিনা পোলেশচুককে। দু’সপ্তাহে মধ্যে এটি তাঁর দ্বিতীয় সোনা। এ বার প্রতিযোগিতায় বিনেশের সোনা ছিল ভারতের মেয়েদের তৃতীয়। ৫০ কেজিতে সীমা এবং ৫৯ কেজিতে মঞ্জু সোনা জেতেন আনায়াসেই। 

পুরুষদের ফ্রিস্টাইল বিভাগে অবশ্য ব্রোঞ্জ এসেছে। ৬১ কেজি বিভাগে রাহুল আওয়ারে ৪-১ পয়েন্টে হারিয়েছেন তুরস্কের মুনির আকতাসেকে। ৮৬ কেজিতে দীপক পুনিয়া রূপো পেলেন ফাইনালে হেরে। ১২৫ কেজি বিভাগে সুমিত ব্রোঞ্জ জিতলেন। ব্রোঞ্জ পেলেন ৭০ কেজি বিভাগে রজনীশ ও ৯২ কেজি বিভাগে ভিকি। বজরং পুনিয়ার অনুপস্থিতিতে ৬৫ কেজি বিভাগে পদক এল না। সোমবা তানজি হেরে গেলেন ব্রোঞ্জের লড়াইয়ে।