• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

পুরসভার চেক সই করবেন অফিসারেরা

Cheques
প্রতীকী ছবি।

মেয়াদ ফুরিয়ে যাওয়া পুরসভার প্রশাসকদের হাতে চেক সই করার ক্ষমতা আর থাকছে না। গত ২ সেপ্টেম্বর পুর ও নগরোন্নয়ন দফতরের জারি করা নির্দেশে সেই অধিকার দেওয়া হচ্ছে এগজিকিউটিভ অফিসার ও ফিনান্স অফিসারের হাতে। প্রশাসন সূত্রে খবর, ভোটের আগে প্রশাসক পরিচালিত পুরসভার স্বচ্ছতা নিয়ে যাতে প্রশ্ন না-ওঠে তা নিশ্চিত করতেই এই পদক্ষেপ করা হয়েছে। তবে কলকাতা, হাওড়া, আসানসোলের মতো মেয়াদ ফুরনো কর্পোরেশনগুলি এই নির্দেশের আওতায় পড়বে না।

প্রশাসনের একাংশের মতে, পূর্ণাঙ্গ বোর্ডহীন পুরসভা পরিচালনায় স্বচ্ছতা রক্ষার বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ। পাশাপাশি, এই মুহূর্তে সরকারের প্রায় সব দফতরের তহবিলেই আর্থিক টানাটানি রয়েছে। প্রশাসকেরা যে হেতু রাজনীতির লোক, তাই তাঁদের রাজনৈতিক দায়বদ্ধতার নানা চাপ থাকতে পারে। খরচের বিষয়টি অফিসারদের হাতে থাকলে জরুরি কাজের বাইরে খরচ নিয়ন্ত্রণ করা সহজ হতে পারে। যদিও প্রশাসকদের একাংশের মতে, নির্ধারিত সময়ে নির্বাচন না-হওয়ায় এমনিতেই নাগরিক পরিষেবা ঘিরে নানা জটিলতা তৈরি হয়েছে। করোনা এবং আমপান তা অনেকটাই বাড়িয়ে দিয়েছে। এই অবস্থায় দৈনন্দিন কাজের জন্য সরকারি আমলাদের উপর নির্ভর করতে হলে পরিস্থিতি আরও কঠিন হবে। তৃণমূলের এক পুর প্রশাসকের কথায়, ‘‘সরকার পুরসভার খরচে স্বচ্ছতা রাখতে চাইলে আরও অনেক পথ ছিল। প্রশাসকের হাতে চেক সইয়ের ক্ষমতা না-থাকলে কাজে দেরি হবে। ন্যূনতম পরিষেবা দিতেও প্রতি মুহূর্তে অন্যের মুখাপেক্ষী হয়ে থাকতে হবে।’’ 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন