লোকসভার ভোট ঘোষণার পরে নির্বাচন কমিশনের নির্দেশে বেশ কিছু পুলিশ অফিসারকে সরানো হয়েছিল। তাঁদের এক্তিয়ারের সময়সীমা শেষ হওয়ার পরে পুলিশে ফের চলছে বদলির পালা। কলকাতা, বিধাননগরের পুলিশ কমিশনার-সহ বেশ কয়েক জনকে কয়েক দিন আগেই ফেরানো হয়েছে স্বপদে। মঙ্গলবার বদলি করা হয়েছে রাজ্য ও কলকাতা পুলিশের ৪৩ জন আইপিএস অফিসারকে।

নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, নির্বাচন কমিশন লোকসভা ভোটের আগে যাঁদের অন্যত্র সরিয়ে দিয়েছিল, তাঁদের মধ্যে কয়েক জনকে পুনরায় আগের জায়গায় ফিরিয়ে আনা হয়েছে। নিষাদ পারভেজকে সোমবার বিধাননগরের পুলিশ কমিশনার করে সরকারি বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। 

এ দিন সেটি বাতিল করে ভরতলাল মিনাকে বিধাননগরের পুলিশ কমিশনার করা হয়েছে। হাওড়ার পুলিশ কমিশনার তন্ময় রায়চৌধুরীকে ভোটের আগে বদলি করা হয়। 

তাঁকে ফিরিয়ে আনা হয়েছে হাওড়ার পুলিশ কমিশনারের পদে। হাওড়ার পুলিশ কমিশনার বিশাল গর্গকে প্রেসিডেন্সি রেঞ্জের আইজি করা হয়েছে। 

মালদহের নতুন পুলিশ সুপার করা হয়েছে আলোক রাজোরিয়াকে। তিনি পশ্চিম মেদিনীপুরে পুলিশ সুপারের দায়িত্বে ছিলেন। প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়কে দক্ষিণ দিনাজপুরের পুলিশ সুপার করা হয়েছে। নগেন্দ্রনাথ ত্রিপাঠী হলেন আলিপুরদুয়ারের পুলিশ সুপার। ডায়মন্ড হারবারের পুলিশ সুপার শ্রীহরি পান্ডে কলকাতা পুলিশের তৃতীয় সশস্ত্র বাহিনীর ডেপুটি কমিশনার হয়েছেন। ভোটের আগে ডায়মন্ড হারাবারের পুলিশ সুপার এস সালভামুরুগানকে বদলি করেছিল নির্বাচন কমিশন। সেই সময় শ্রীহরিকে ডায়মন্ড হারবারের পুলিশ সুপারের দায়িত্ব দেওয়া হয়।

শিলিগুড়ির পুলিশ কমিশনার করা হয়েছে গৌরব শর্মাকে। বনগাঁ, রানাঘাট, কৃষ্ণনগর ও সুন্দরবন পুলিশ জেলা গড়ে চার জনকে পুলিশ সুপারের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। যুগ্ম কমিশনার (ট্র্যাফিক) হলেন মুরলীধর। শুভঙ্কর সিংহ সরকারকে যুগ্ম কমিশনার (এসটিএফ) পদে বদলি করা হয়েছে। সুধীরকুমার নীলকান্ত হলেন ডেপুটি কমিশনার (সেন্ট্রাল)।