বেতন কমিশন ও মহার্ঘভাতা বকেয়া থাকার কারণে সরকারি কর্মচারীরা মুখ ঘুরিয়ে নিয়েছেন। সোমবার তৃণমূলের কর্মচারী সংগঠনের সঙ্গে নির্বাচনী ফল পর্যালোচনার বৈঠকে এ কথা স্বীকার করে নিলেন দুই মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও শুভেন্দু অধিকারী। ক্ষোভ প্রশমনে সরকারি পরিচালনায় তাদের গুরুত্ব দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন তিনি। বিজেপির নাম না করলেও সংগঠনের ভাঙন সম্পর্কে নেতাদের সতর্ক করে দিয়েছেন তাঁরা।  

ক্ষমতায় আসার পর থেকেই সরকারি কর্মচারী সংগঠন নিয়ে নানারকম টানাপোড়েনেই রয়েছে তৃণমূল। সদস্য সংখ্যা ক্রমাগত বেড়ে গেলেও কখনই সংগঠন দল বা সরকারের পরিপূরক হয়ে উঠতে পারেনি। এবারের লোকসভা ভোটে কর্মচারী ভোটের সিংহভাগ বিরুদ্ধে যাওয়ায় নতুন করে বিষয়টি নিয়ে পর্যালোচনা শুরু করেছে তৃণমূল নেতৃত্ব। এত দিন কর্মচারী সংগঠনের দায়িত্ব দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের হাতে থাকলেও ভোটের ফল প্রকাশের পর তা দেওয়া হয়েছে শুভেন্দুবাবুর হাতে। তার পরই কর্মচারী সংগঠনের কোর কমিটির সঙ্গে এই বৈঠকে শুভেন্দুবাবু এই বৈঠক করেন। সেখানে কর্মচারী নেতাদের বক্তব্য শোনার পর শুভেন্দুবাবু মেনে নেন, পেশাগত প্রাপ্য সংক্রান্ত অসন্তোষের ফলেই কর্মচারীদের সমর্থন তৃণমূলের থেকে সরে গিয়েছে। খুব শীঘ্রই পে কমিশনের রিপোর্টের ভিত্তিতে সরকার সিদ্ধান্ত নেবে জানিয়ে দিয়েছেন তিনি। পার্থবাবু বলেন, ‘‘নিয়মমাফিক পর্যালোচনা করেছি। ঐক্যবদ্ধভাবে সরকারের উন্নয়নের পাশে থাকতে বলা হয়েছে সকলকে।’’     

বাম জমানায় সরকারি কর্মচারী সংগঠন যেভাবে রাজ্য সরকারের পাশে দাঁড়াত তৃণমূলের আমলে তা হয়নি। তা মেনে নিলেও এ ব্যাপারে দলের মনোভাবকেও দায়ী করেছেন সংগঠনের নেতারা। সরকারি কাজে কর্মচারী সংগঠনকে গুরুত্বহীন রেখে আমলাদের ক্ষমতাবৃদ্ধি নিয়ে শুরু থেকে অভিযোগও করে আসছেন তাঁরা। দলের ওই পর্যালোচনা বৈঠকে কর্মচারী সংগঠনের নেতাদের সেই অভিযোগ মেনে নিয়েই শুভেন্দুবাবু বলেছেন, সরকার না থাকলে দল বা সংগঠন থাকবে না। কিন্তু আমলারা থেকে যাবেন। ফলে দল ও সরকারের প্রয়োজনে কর্মচারী সংগঠনকে গুরুত্ব দিয়েই কাজ করবেন তিনি।

দল ও সরকারের বিভিন্ন কর্মসূচিতে কর্মচারী সংগঠনকে জুড়ে দিতে চাইছে তৃণমূল। গুরুত্ব না দেওয়ায় আট বছর ক্ষমতায় থেকেও সব জেলায় পূর্ণাঙ্গ কমিটি তৈরি করতে পারেনি তারা। এ বার জেলা তো বটেই বুথ স্তর পর্যন্ত কমিটি গড়তে চাইছেন শুভেন্দুবাবু।

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের YouTube Channel - এ।