নতুন শিল্পের কথা শোনার আশা ছিল
মোদীর সভামঞ্চের কাছাকাছি দাঁড়িয়ে নিজস্বী তুলছিলেন কলেজের ছাত্রী, নতুন ভোটার পূজা পাল। তিনি আবার তুলনা টেনে বলেন, ‘‘মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কৃষি উন্নয়নের কথা বলেন, তা ভাল। কিন্তু উনি নতুন শিল্প নিয়ে কিছু বলেছেন বলে আমি শুনিনি। প্রধানমন্ত্রী নতুন শিল্প নিয়ে কিছু বলবেন, এ আশা ছিল।’’
modi

এই লোকসভা কেন্দ্রে একের পরে এক রাষ্ট্রায়ত্ত কারখানা বন্ধ হয়েছে। কিন্তু মঙ্গলবার আসানসোলের সভায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নতুন শিল্পের দিশা না দেখানোয় কিছুটা হতাশ নবীন প্রজন্মের অনেকে।

আসানসোলে গত কয়েক বছরে রাষ্ট্রায়ত্ত বার্ন স্ট্যান্ডার্ড, হিন্দুস্তান কেবল্‌স বন্ধ হয়েছে। এলাকার ১৬টি ভূগর্ভস্থ খনি বন্ধের সিদ্ধান্তও জানিয়েছে কয়লা মন্ত্রক। এ বারের ভোটেও আসানসোলে বন্ধ রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প নিয়ে বিজেপির বিদায়ী সাংসদ তথা এ বারেও বিজেপি প্রার্থী বাবুল সুপ্রিয় এবং কেন্দ্রীয় সরকারকে বিঁধছে তৃণমূল, সিপিএম। যদিও বিজেপির বক্তব্য, ‘অলাভজনক’ হওয়াতেই রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্পগুলি বন্ধ করা হয়েছে। এবং সে পরিস্থিতির ‘দায়’ বামেরা বা তৃণমূল এড়াতে পারে না।

বার্ন স্ট্যান্ডার্ড বন্ধ হওয়ায় কাজ হারানো এক ঠিকাকর্মীর ছেলে রাহুল সেনগুপ্ত নতুন শিল্প নিয়ে প্রধানমন্ত্রী কী বলেন জানতে আগ্রহী ছিলেন। রাহুল নিজেও একটি বেসরকারি সংস্থার কর্মী। এ নিয়ে দ্বিতীয়বার ভোট দেবেন। মোদীর বক্তব্য প্রসঙ্গে তাঁর মত, ‘‘দুর্নীতি রোখা, উন্নয়ন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী যা বলেছেন ভাল লেগেছে। কিন্তু নতুন শিল্প স্থাপন নিয়ে কিছু কথা থাকলে ভাল হত। ‘অলাভজনক’ বন্ধ কারখানার জমিতেই তো নতুন শিল্প হতে পারে।’’

 দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

মোদীর সভামঞ্চের কাছাকাছি দাঁড়িয়ে নিজস্বী তুলছিলেন কলেজের ছাত্রী, নতুন ভোটার পূজা পাল। তিনি আবার তুলনা টেনে বলেন, ‘‘মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কৃষি উন্নয়নের কথা বলেন, তা ভাল। কিন্তু উনি নতুন শিল্প নিয়ে কিছু বলেছেন বলে আমি শুনিনি। প্রধানমন্ত্রী নতুন শিল্প নিয়ে কিছু বলবেন, এ আশা ছিল।’’

এলাকা তথা রাজ্যে নতুন শিল্প না হওয়ার কারণ হিসেবে বর্তমান রাজ্য সরকারকেই দায়ী করলেন কলেজ ছাত্রী, নতুন ভোটার রঞ্জু যাদব। মোদীর ছবি দেওয়া টুপি কিনতে কিনতে রঞ্জু বলেন, ‘‘মোদী যখনই নতুন কিছু করার চেষ্টা করছেন, বাধা দিচ্ছে রাজ্য। শিল্পক্ষেত্রে অন্তত সে বাধা দূর হোক।’’

এলাকার রাজনৈতিক নেতা, কর্মীদের মতে, এ বারে আসানসোলের ভোটে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নবীন প্রজন্মের। মোট ১৬ লক্ষ ১৪ হাজার ৯১৭ জনের মধ্যে লক্ষাধিক নতুন ভোটার, জানা গিয়েছে প্রশাসন সূত্রে।

যদিও তরুণদের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তৃণমূল নেতৃত্ব। তৃণমূল প্রার্থী মুনমুন সেনের কথায়, ‘‘রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্পের করুণ অবস্থা হলেও আমাদের রাজ্য সরকার একের পরে এক শিল্পতালুক তৈরি করে নতুন শিল্প এনেছে, সেটা তরুণ প্রজন্ম জানে।’’ তবে বিজেপি প্রার্থী বাবুল সুপ্রিয়ের বক্তব্য, ‘‘মোদীর নামেই নতুন আশা, সভায় উপস্থিত হয়ে সেটাই বুঝিয়ে দিয়েছেন তরুণেরা।’’

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত