মূল দু’টি দাবির অনেকটাই পূরণ হয়েছে। তাই সপ্তাহ দুয়েকের অনশন তুলে নিলেন প্রাথমিক শিক্ষকেরা।

সর্বভারতীয় হারে বেতনের পাশাপাশি ১৪ জন শিক্ষক-শিক্ষিকার বদলি রদের দাবিতে উস্তি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন ওই আন্দোলনে নেমেছিল। আন্দোলনকারীদের পক্ষে পৃথা বিশ্বাস শুক্রবার বলেন, ‘‘রাজ্য সরকার বেতন বাড়িয়েছে। সেই আদেশনামা শিক্ষামন্ত্রীর দফতর থেকে পাঠানো হয়েছে আমাদের। সেই সঙ্গে আমাদের ১৪ জন শিক্ষকের বদলি রদ করে তাঁদের হয় পুরনো স্কুলে অথবা নিজের পুরনো সার্কেলে পুনর্বহাল করা হয়েছে। অনশনকারীদের শারীরিক অবস্থারও অবনতি ঘটছিল। তাই এ বারের মতো আন্দোলনে ইতি টানা হল।’’ তবে পৃথা জানান, নতুন বেতন কাঠামো নিয়ে তাঁদের কিছু আপত্তি রয়েছে। সর্বভারতীয় হারে বেতনের দাবিতে আন্দোলন চলবে।

তৃণমূলের প্রাথমিক শিক্ষক সংগঠনের রাজ্য সভাপতি অশোক রুদ্র বলেন, ‘‘বাম সরকার শিক্ষকদের কোনও সম্মান দেয়নি। বেতন বাড়িয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার সেই সম্মান দিল।’’ বেতন বৃদ্ধিতে সন্তোষ প্রকাশ করেও পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক প্রশিক্ষিত শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক পিন্টু পারুই বলেন, ‘‘পিটিটিআই প্রশিক্ষিত শিক্ষকদের অবিলম্বে নিয়োগ না-করলে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির সামনে অবস্থানে বসব।’’