রাজ্য তথ্য কমিশনের নির্দেশে চাকরি প্রার্থীদের উত্তরপত্র দেখানোর সিদ্ধান্ত নিল পাবলিক সার্ভিস কমিশন (পিএসসি)।

কমিশন জানিয়েছে, যে কোনও নিয়োগ পরীক্ষায় বসা পরীক্ষার্থী চাইলে নিজের উত্তরপত্র দেখতে পারেন। চেয়ারম্যান অথবা তাঁর মনোনীত আধিকারিক উত্তরপত্র দেখানোর ব্যবস্থা করবেন। কিন্তু সে জন্য পরীক্ষার ফল বেরনোর ৩০ দিনের মধ্যে কমিশন নির্ধারিত বিধি মেনে আবেদন করতে হবে। কমিশনের চেয়ারম্যান দীপঙ্কর দাশগুপ্ত বলেন, ‘‘সকলের সুবিধার্থেই এই পদক্ষেপ।’’ কমিশনের আধিকারিকদের একাংশের ব্যাখ্যা, সম্প্রতি উত্তরপত্র দেখতে চেয়ে আবেদনের সংখ্যা বেড়েছে। পরীক্ষার ফল প্রকাশের অনেক পরেও উত্তরপত্র দেখতে চাইছেন তাঁরা। ফলে সমস্যায় পড়ছে কমিশন। এই পরিস্থিতিতে উত্তরপত্র দেখানোর পদ্ধতি সরল করতেই তথ্য জানার অধিকার আইনের অধীনে এই পদক্ষেপ করা হয়েছে।

কিন্তু পরীক্ষার্থীদের একাংশের অভিযোগ, দীর্ঘদিন তথ্য জানানোর এই দাবি তাঁরা করে আসছেন। কারণ, বছরখানেক আগে ডব্লিউবিসিএস পরীক্ষায় এক পরীক্ষার্থীর নম্বর বাড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল পিএসসির বিরুদ্ধে। তখন পরীক্ষা ব্যবস্থার স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে আন্দোলন হয়েছিল। তদন্ত কমিটি তৈরি করতে হয়েছিল কর্তৃপক্ষকে। তার পর থেকেই পরীক্ষার ‘কাট অফ মার্কস’ এবং উত্তরপত্র দেখানোর দাবি জোরদার হতে শুরু করে। তথ্য জানার অধিকার আইন (আরটিআই) বলে উত্তরপত্র দেখতে চেয়ে আবেদনপত্র জমা করতে থাকেন পরীক্ষার্থীরা। 

সূত্রের খবর, আরটিআইগুলির জবাব না-পেয়ে পরীক্ষার্থীদের অনেকেই রাজ্য তথ্য কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছিলেন। তথ্য কমিশন সূত্রের খবর, ‘সেকেন্ড আপিল’ (প্রথম আরটিআই’এর জবাব না পেলে তথ্য কমিশনের দ্বারস্থ হওয়া) হিসেবে সেগুলিকে গ্রহণ করা হয়। বিষয়টি বিশ্লেষণের পরে পিএসসি-কে তথ্য জানানোর নির্দেশ দেয় তথ্য কমিশন। তথ্য কমিশনের আধিকারিকদের মতে, আরটিআই অনুযায়ী পিএসসি তথ্য জানাতে বাধ্য। তারা সেই পদক্ষেপ করায় চাকরির পরীক্ষায় স্বচ্ছতা বাড়বে।