এর আগে আয়ুষ্মান খুরানা জানিয়েছিলেন, ‘বালা’র জন্য তিনি নেড়া হবেন না। বরং প্রস্থেটিকের মতো আধুনিক উপায়ে তাঁকে নেড়া সাজানো হবে ছবিতে। ‘বালা’র অভিনব কনসেপ্ট সম্পর্কে আগ্রহ অবশ্য তার আগে থেকেই রয়েছে। কিন্তু ছবির সহকারী পরিচালক কমলকান্ত চন্দ্র হঠাৎ দাবি করেছেন, চিত্রনাট্য লেখা হয়েছে তাঁর কনসেপ্ট চুরি করে!
এর জন্য তিনি ছবির নির্মাতাদের বিরুদ্ধে প্রতারণা এবং বিশ্বাসভঙ্গের অভিযোগ দায়ের করেছেন থানায়।

মাস কয়েক আগেই নাকি মুম্বই হাইকোর্টে আয়ুষ্মান, ছবির পরিচালক অমর কৌশিক এবং প্রযোজক দীনেশ ভিজানের বিরুদ্ধে মামলা  করেছিলেন কমলকান্ত। মামলার বয়ানে ছিল, নির্মাতারা ছবির মোদ্দা বিষয়টিকেই নকল করেছেন— যা অকালে টাক পড়ে যাওয়া এক যুবকের কাহিনি নিয়ে। বিষয়টি তিনি অনেক আগেই ভেবেছিলেন বলে দাবি করেছেন কমলকান্ত। ১৯ এপ্রিল সেই মামলার পরিপ্রেক্ষিতে নির্মাতারা জানিয়েছিলেন, তখনও চিত্রনাট্য লেখা চলছে। অথচ কমলকান্তের অভিযোগ অনুযায়ী, আদালতের চূড়ান্ত রায়ের আগেই নির্মাতারা শুটিং শুরু করে দিয়েছেন। সেই কারণেই পুনরায় অভিযোগ দায়ের করতে বাধ্য হয়েছেন তিনি।

শোনা যায়, ‘বালা’র মূল গল্পটি লিখেছিলেন বাঙালি পরিচালক পাভেল। প্রযোজনা সংস্থা থেকে অবশ্য তাতে বেশ কিছু রদবদল করে স্ক্রিনপ্লে সাজানো হয়। সূত্রের খবর, পাভেলের কনসেপ্টও অকালে টাক পড়ে যাওয়া এক ব্যক্তিকে নিয়েই। কনসেপ্ট চুরির প্রসঙ্গে পাভেলের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘‘এ বিষয়ে আমি এখন কোনও মন্তব্য করব না।’’ তবে নির্মাতাদের তরফে জানানো হয়েছে, আদালত থেকে যত ক্ষণ না স্থগিতাদেশ দেওয়া হবে, তাঁরা ‘বালা’র শুটিং চালিয়ে যাবেন। ছবিতে আয়ুষ্মানের বিপরীতে দেখা যাবে ভূমি পেডনেকরকে।