প্রযোজক হিসেবে দেব বারবার নতুন কিছু করার পথ বেছে নিচ্ছেন। ‘চ্যাম্প’, ‘ককপিট’, ‘কবীর’-এর পর তিনি দর্শককে উপহার দিচ্ছেন ‘পদ্মশ্রী সুবাসিনী মিস্ত্রী’। বাস্তব ঘটনানির্ভর এই ছবি ঘোষণার জন্য দেব বেছে নিয়েছিলেন আন্তর্জাতিক নারী দিবসের দিনটিকেই। ছবির পরিচালক অনিকেত চট্টোপাধ্যায়। 
সুবাসিনী মিস্ত্রীর স্বামী মারা গিয়েছিলেন বিনা চিকিৎসায়। সুবাসিনীর কোলে তখন এক বছরের শিশুকন্যা। রয়েছে আরও তিন ছেলেমেয়ে। শিক্ষাগত পাঠ না থাকা সত্ত্বেও হার মানেননি তিনি। জীবনধারণের জন্য বাজারে আনাজপাতি বিক্রি করেছেন। ছেলেমেয়েদের পড়াশোনা শিখিয়েছেন। ছেলেকে চিকিৎসক বানিয়েছেন। দৈনন্দিন জীবনযাপনই যাঁর কাছে চিন্তার, নিরন্তর লড়াই করে সেই সুবাসিনী বানিয়েছেন হাসপাতাল। ‘হিউম্যানিটি হসপিটাল’। সাংবাদিক সম্মেলনে এসে তিনি বললেন, ‘‘বিনা চিকিৎসায় চলে যাওয়া মানুষের জন্য যেন কোনও মা-বোনের চোখের জল না পড়ে। এটাই চেয়েছিলাম।’’
ছবির চিত্রনাট্য অবশ্য এখনও তৈরি হয়নি। কে মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করবেন, ঠিক হয়নি তা-ও। তবে এই ছবিতে যে থিয়েটারের একঝাঁক নতুন মুখ দেখা যাবে, দেবের কথায় তার আভাস পাওয়া গেল। অনিকেতের কথায়, ‘‘আপাতত ছবির মুখ্য চরিত্রের জন্য প্রাথমিক ভাবে তিন জনের কথা ভাবা হচ্ছে। অভিনেত্রীদের লোকেশনে গিয়ে তিন মাস থেকে রপ্ত করতে হবে সেখানকার জীবনযাপন। তাঁদের মধ্য থেকেই বেছে নেওয়া হবে এক জনকে। লোকেশনের জন্য বাছা হয়েছে বারুইপুর, ক্যানিং এবং ঠাকুরপুকুরের একটি এলাকা।’’
পরিচালক আরও জানান, সুবাসিনীর ১৮-৭০ বছরের জন্য রাখা হবে চারটি লুক। এক জন অভিনেত্রীকেই দেখা যাবে এই চার লুকে। প্রস্থেটিক মেকআপের সাহায্য নেওয়া হবে। দেবের প্রযোজনায় সব ক’টা ছবিতেই নায়িকা হিসেবে দেখা গিয়েছে রুক্মিণীকে। স্বভাবতই প্রশ্ন এখানেও কি দেখা যাবে তাঁকে? এ নিয়ে পরিচালক বা প্রযোজক মুখ খুলতে রাজি না হলেও রুক্মিণীর থাকার বিষয়টা কিন্তু অস্বীকার করেননি।
অনিকেত আরও বলেন, ‘‘চিত্রনাট্যের জন্য কুড়ি দিন রাখা হয়েছে। এই ক’দিন রোজ সুবাসিনীর বাড়ি গিয়ে তাঁর ও তাঁর পরিবারের সকলের কথা বলে, বিস্তারিত চিত্রনাট্যের দিকে এগোনো হবে। ছবির কথা ভাবার তিন-চার দিনের মাথায় সুবাসিনীর ‘পদ্মশ্রী’ পাওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়েছিল। তাই যখন পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান হবে, সেটা আলাদা করে তুলে নেবেন অনিকেত।
প্রযোজক দেবকে কি এখানে দেখা যাবে? পরিচালক বললেন, ‘‘সে ভাবে নয়। তবে ছোট কোনও চরিত্রে হয়তো দেখা যেতে পারে দেবকে।’’ ছবিটি মুক্তি পাবে এ বছর বড়দিনের ছুটিতে।