একটা সময় অবধিও থালা-বাসন মানে শুধুই রান্না আর খাওয়ার ব্যাপার ছিল। কিন্তু সে সব দিন ফুরিয়েছে। নতুন করে দেখার ভঙ্গিতে ক্রকারিও আর কাপবোর্ডে বন্দি নেই। বরং তারা স্বমহিমায় দেওয়ালে, টেবিলে, তাকে জায়গা করে অন্দরসজ্জার ভোল বদলে দিয়েছে। ভাল মানের সেরামিকও কোনও অংশে দামি কাঠের আসবাবের চেয়ে পিছিয়ে নেই। তাই বেডরুম, ডাইনিং থেকে বাথরুমের সাজে এ বার লাগুক ক্রকারির ছোঁয়া।

ক্রকারি দিয়ে ঘর সাজাতে গিয়েই তালিকায় সবচেয়ে উপরে থাকে রেকাবির নাম। দেওয়ালে হরেক রকমের প্লেট সাজিয়ে রাখার চল কিন্তু আজকের নয়। আবার ঘর সাজাতে প্লেট ছাড়াও কাচের জার, সেরামিকের বয়াম, চিনেমাটির পেয়ালা, ওয়াইন গ্লাস, কফি মাগ, মেসন জার... ব্যবহার করতে পারেন সব কিছুরই।

প্রথমে নিজের বাড়িতে থাকা হরেক ক্রকারির মধ্যে থেকে কোনগুলো সেরা, বেছে নিন। আপনার ঘরের এই মুহূর্তে যে ধরনের সাজ রয়েছে, তার উপরে ভিত্তি করেই প্রাথমিক ভাবে ক্রকারি বাছতে হবে। দেওয়ালের সঙ্গে মানিয়ে যেতে পারে, এমন নিউট্রাল টোনের ক্রকারি বাছতে পারেন। আবার ক্রকারির উপরে নজর ফেরানোর জন্য দেওয়ালের রঙের একদম উল্টো ও উজ্জ্বল কোনও রঙের ক্রকারিও নির্বাচন করতে পারেন।

দেওয়ালে রঙের প্যালেট তৈরির জন্য একই রঙের নানা শেড বাছতে পারেন। আবার আপনার পছন্দের তালিকার একদম প্রথমে থাকতে পারে ক্রকারির আকারও। অনেক সময়ে বিভিন্ন আকারের ক্রকারি পাশাপাশি সুন্দর করে সাজিয়েও অন্য জ্যামিতিক মাত্রা আনা যায়।

এ তো গেল দেওয়ালে সরাসরি ক্রকারি লাগানোর কথা। কাঠের ওয়াল হ্যাঙ্গিং বা ঝুলন্ত বাক্স লাগিয়ে তাতে নানা ধরনের ফুলদানি, মেসন জার, কাচের বাহারি বাটি কিংবা সেরামিকের বয়াম রাখতেই পারেন।

আবার কাঠের বাক্স না ঝুলিয়ে ক্যাবিনেট কিংবা শেল্‌ফেরও শরণাপন্ন হতে পারেন। সে ক্ষেত্রে তাকের উপরে পাশাপাশি কিংবা সমান বিরতিতে ইচ্ছে মতো ক্রকারি সাজিয়ে রাখুন। তবে এ ক্ষেত্রে ক্রকারির পাশাপাশি কিন্তু আলোর দিকেও খেয়াল রাখা জরুরি।

নিজের কিচেন ক্যাবিনেটকেই অন্দরের সাজ হিসেবে তুলে ধরতে চাইলে ক্রকারি সাজান রঙের হালকা থেকে গাঢ় কিংবা উল্টো ভাবে। এতে বিষয়টিতে সম্পূর্ণতা আসে।

আবার এটা ভাবছেন, কেন দেওয়াল জুড়ে ক্রকারি সাজাবেন? তা হলে এ বার সিলিং কাজে লাগান। ফল্‌স সিলিং থেকে ওয়াইনের গ্লাস, মজাদার কফির মাগ... সব কিছুই ঝোলাতে পারেন।

শুধু সিলিং, দেওয়াল বা মেঝে নয়, ক্রকারি সাজাতে সিলিং থেকে টানা মেঝে অবধি ব্যবহার করতে পারেন। অর্থাৎ এমন তাক তৈরি করলেন যা ঘরের যে কোনও একটা দেওয়ালেরই উচ্চতার। সেই তাকে থরে থরে সাজিয়ে রাখলেন ভিন্টেজ লাঞ্চ বক্স অথবা থার্মোসেস। অন্য রকম সাজ হল বইকী!

সবই তো গেল ক্রকারি কিনে এনে সাজিয়ে রাখার কথা। এর পাশাপাশিই যদি সাজের সঙ্গেই ক্রকারিতে থাকে নিজের হাতের ছোঁয়া? বাড়ির সদস্যের সংখ্যা গুনে কফি মাগ নিন। প্রতিটি মাগের উপরে সদস্যদের ছবি আঁকিয়ে কিংবা প্রিন্ট করে নিতে পারেন।

আবার কফি মাগ কিংবা রেকাবির উপরে পছন্দের কবিতা, গল্পের লাইন অথবা উক্তি লিখতে পারেন। কিংবা রেকাবিতে প্রিয় মানুষ, পছন্দের অভিনেত্রীর মুখের নানা আদল, অঙ্গভঙ্গি আঁকিয়ে নিতে পারেন। অতিথি হোক বা প্রিয়জন— আটকা পড়বেনই আপনার শৌখিন রুচিতে।