বাড়িতে তো কত বোতলই পড়ে থাকে। শুধু জল খেতেই হয়তো তাদের কাজে লাগানো হয়। আর প্রয়োজনের চেয়ে বেশি হয়ে গেলে তার জায়গা হয় ডাস্টবিনে। এ বার বরং এই বোতল দিয়েই সাজিয়ে ফেলুন আপনার বাড়ি।

 

বোতলের ব্যবহার

• ছোট কাচের বোতল হলে তাতে ভরে ফেলতে পারেন মশলাপাতি। রান্নাঘরে রেখে দিন। তা হলে কোন পাত্রে কোন মশলা আছে, তা খুঁজে পেতেও কষ্ট করতে হবে না।

• প্লাস্টিকের বোতল হলে তার মুখের অংশটি কেটে নিয়ে বা আড়াআড়ি ভাবে একটি দিক কেটে নিয়ে তার মধ্যেই গাছ বসাতে পারেন। বোতলের গায়ে পছন্দসই রঙের প্রলেপ লাগিয়ে নিন। আরও সুন্দর দেখাবে।

• বিভিন্ন রঙের কাচের বোতল থাকলে, তার মধ্যে ছোট আলো ভরে ফেলতে পারেন। কাচের রং প্রতিফলিত হয়ে বেশ দেখাবে। একাধিক বোতলে আলো ভরে ঘরের ছাদেও লাগিয়ে নিতে পারেন। বেশ নতুন ধরনের আলোকসজ্জাও হয়ে যাবে।

• মোমবাতির স্ট্যান্ড হিসেবেও ব্যবহার করতে পারেন বোতল। বোতলের মধ্যে রঙিন নুড়ি ভরে ফেলুন। তার পরে তার মুখে মোমবাতি বসিয়ে নিন। প্রয়োজন মতো জ্বালিয়ে রাখুন। তবে খেয়াল রাখবেন কাচের অংশ আসার আগেই মোমবাতি তুলে ফেলতে হবে। এই মোম গলে কাচের বোতলের গায়ে জমে বেশ সুন্দর দেখায়। ফলে পরেও তা ব্যবহার করতে পারেন ঘর সাজাতে।

• শপিং মল বা বাজার থেকে পপৌরি কিনে আনতে পারেন। পপৌরি আসলে সুবাসিত শুকনো ফুল ও পাতা। এই পপৌরি দিয়েও বোতলের অর্ধেক ভরে ফেলতে পারেন। তার পরে তা সাজিয়ে রাখুন স্নানঘরে। দেখতেও ভাল লাগবে। একই সঙ্গে সুগন্ধে ভরে উঠবে আপনার স্নানঘর।

• ফ্লাওয়ার ভাসের মতোও ব্যবহার করতে পারেন বোতল। বোতলেই জল ভরে তার মধ্যে গোলাপের গুচ্ছ বা রজনীগন্ধা স্টিক ভরে সাজিয়ে রাখতে পারেন ঘরের একপাশে। একটু সুন্দর দেখাতে বোতলের পেট বরাবর রঙিন রিবন লাগিয়ে দেওয়াই যায়।

• প্লাস্টিকের বোতল মাঝবরাবর কেটে ফেলুন। প্রথমে পেন দিয়ে দাগ কেটে নিন। তার পরে ছুরি গরম করে দাগ বরাবর দু’ভাগে কেটে ফেলুন। মাঝখানে চেন লাগিয়ে নিন আঠা দিয়ে। রং পেনসিল বা পেন রাখার কাজে ব্যবহার করতে পারেন।

 

ঘরের সাজে বোতল

• কাচের বোতল যদি স্বচ্ছ হয়, তা হলে তার মধ্যে প্রথমে বালি ভরে ফেলুন। সকলের নীচে থাকবে বালির স্তর, তার উপরে ঝিনুক দিয়ে আর একটি স্তর সাজিয়ে নিন। বোতলের গলার কাছে রঙিন ফিতে দিয়ে বেঁধে সাজিয়ে রাখতে পারেন স্নানঘরে বা বসার ঘরের জানালায়।

• বোতলের গায়ে গ্লাস পেন্টিংয়ের রং দিয়েও নকশা ফুটিয়ে তুলতে পারেন। তার পরে ভিতরে ভরে ফেলুন রঙিন জল। যেখানেই রাখুন না কেন, চোখে পড়বেই।

• নারকেল দড়ি নিয়ে পুরো বোতলের গা মুড়ে ফেলুন। তার পরে সেই দড়ি দিয়েই ফুল বানিয়ে বোতলের গায়ে একটু ছড়িয়ে-ছিটিয়ে লাগিয়ে নিন। আর মাঝখানে একটি করে সাদা পুঁতি বসিয়ে নিন।

• বাড়িতে মোজা থাকলে মোজার বন্ধ দিক কেটে নিয়ে তা পরিয়ে ফেলতে পারেন বোতলে। তার পরে বোতলের গলার কাছে ছোট লাল রঙের রিবন দিয়ে টাই বেঁধে নিন। বোতলের মুখে ছোট পিং পং বল বসিয়ে তার উপরে চোখ-নাক-মুখ এঁকে নিন। কোনও বোতলের মুখে পিংপং বলের মাথায় টুপি পরিয়ে, কোনওটায় কালো উলের চুল লাগিয়ে বানিয়ে ফেলতে পারেন বাহারি পুতুল। 

• চার-পাঁচটি বোতল নিন। এ বার এক একটি দেশের ম্যাপ আকার মতো কেটে নিয়ে, লাগিয়ে নিতে পারেন বোতলের গায়ে। পাঁচ-ছ’টি বোতল এ রকম বিভিন্ন দেশের ম্যাপ দিয়ে ঢেকে উপরে সেই দেশের নামের একটি বোর্ড বোতলের মুখে বসিয়ে নিন। ঘর সাজাতে তো পারেনই, একই সঙ্গে বাড়ির খুদেটিকে ডেকে গ্লোবের মতো ব্যবহার করে ম্যাপ পয়েন্টিং খেলতে পারেন। গ্লোবে একসঙ্গে সব দেশের বিস্তারিত বর্ণনা পাওয়াও যায় না। এই বোতল গ্লোবে কিন্তু তা সহজেই সম্ভব।

• বোতলের গায়ে গ্লিটার বা রঙিন অভ্র আঠা দিয়ে লাগিয়ে নিন। এ বার ভিতরে আলো জ্বাললে তা আরও জৌলুস আনবে গৃহসজ্জায়।

• ডয়েলি পেপার থাকলে তা সুন্দর করে কেটে বোতলের গায়ে লাগিয়ে নিন। খুব কাছাকাছি না লাগিয়ে একটু স্পেস দিয়ে আটকান। দেখতে ভাল লাগবে।

খেয়াল রাখবেন কী ধরনের বোতল কী কাজে ব্যবহার করছেন। যদি প্লাস্টিকের বোতল গাছ বা ফুল রাখার কাজে ব্যবহার করেন, তা হলে কয়েক মাস বাদেই কিন্তু পালটে নিতে হবে। আর প্লাস্টিকের বোতল রোদে রাখবেন না। কাচের বোতল হলে তার সাজ কিন্তু অনেক বেশি স্থায়ী হবে।