• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা মামলায় ১১ জনের ২০ বছর কারাদণ্ডের নির্দেশ আদালতের

Sheikh Hasina
শেখ হাসিনা।—ফাইল চিত্র।
২৮ বছর আগে বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা মামলায় ১১ জনকে ২০ বছর করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। আর হুমায়ুন কবির ওরফে কবির নামে এক অভিযুক্তকে খালাস দিয়েছে আদালত। মামলার রায়ের পর্যবেক্ষণে আদালত বলেছে, ‘এটি কোনও বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার ধারাবাহিকতা এটা।’ রবিবার ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ জাহিদুল কবির এই রায় ঘোষণা করেন।
১৯৮৯ সালের ১০ অগস্ট মধ্যরাতে আওয়ামী লিগ সভানেত্রীর ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরের বাড়িতে গুলি ও বোমা ছোড়া হয়। তদন্তে জানা যায় বঙ্গবন্ধুর খুনিদের নেতৃত্বে গঠিত একটি দল বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ওই হামলা চালিয়েছিল।
এর আগে রবিবার বেলা  ১১টা ৫৯ মিনিটে বিচারক এজলাসে ওঠেন। বেলা ১২টা ১ মিনিট থেকে রায় পড়া শুরু করেন। রায়ের শুরুতে ঘটনার বর্ণনা তুলে ধরেন বিচারক। দুপুর ১টার দিকে তিনি রায় ঘোষণা করেন।
মামলার রায়ে বলা হয়েছে, পলাতক আসামি লেফটেন্যান্ট কর্নেল খন্দকার আব্দুর রশিদ, জাফর আহম্মদ ওরফে মানিক ও হুমায়ুন কবির আদালতে আত্মসমর্পণ করা কিংবা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়ার সময় হতে তাদের সাজার মেয়াদ শুরু হবে।
এ মামলার আসামিরা- গোলাম সারোয়ার ওরফে মামুন, জজ মিয়া, সোহেল, সৈয়দ নাজমুল মাকসুদ মুরাদ, খন্দকার আমিরুল ইসলাম, গাজী ইমাম হোসেন, মিজানুর রহমান, হোমায়েন কবির, মহম্মদ শাহজাহান বালু, আবদুর রশীদ, জাফর আহম্মদ ও এইচ কবির।
পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে বিভিন্ন সময় মোট ১৯ বার চেষ্টা চালানো হয়েছে। গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় বোমা পুঁতে হামলার মামলাটিরও এই বছরই রায় হয়েছে।
১৯৮৯ সালের ১০ আগস্ট মধ্যরাতে আওয়ামী লিগ সভানেত্রীর ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরের বাড়িতে ওই ঘটনায় নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ কনস্টেবল জহিরুল ইসলাম মামলা করেন।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন