গত মাসেই দিল্লিতে এসে সঙ্ঘ পরিবার ও বিজেপি নেতাদের কাছে দরবার করে গিয়েছিল খালেদা জিয়ার দল বিএনপি। এর পরে রবিবার সকালে সাংবাদিক সম্মেলন করে ফের উচ্চ স্বরে ভারত-বিরোধী জিগির তুললেন সেই দলের মুখপাত্র। ঢাকায় ভারতীয় হাই কমিশনকেও তীব্র আক্রমণ করে বিএনপি-র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভি বলেন, ‘‘সরকারকে টিকিয়ে রাখতে ভারতীয় হাই কমিশনের কর্মকর্তারা ঔপনিবেশিক শাসকের ভূমিকা নিয়েছেন।’’ ঢাকায় ভারতীয় হাই কমিশন দফতরকে ব্রিটিশ আমলের ‘গভর্নর হাউস’ বলে মন্তব্য করে বিএনপি নেতা বলেন, ‘‘বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে তারা আগ্রাসী হস্তক্ষেপ করছে, যা দুঃখজনক।’’

দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছর কারাদণ্ড পাওয়া নেত্রী খালেদা জিয়ার জন্য ব্রিটিশ আইনজীবী লর্ড কার্লাইলকে নিয়োগ করেছে বিএনপি। সূত্রের খবর, কার্লাইল শীঘ্রই দিল্লিতে খালেদার বাংলাদেশি আইনজীবীদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। তার পরে ১৩ তারিখে দিল্লিতে তাঁর একটি সাংবাদিক সম্মেলনও করার কথা। নির্দিষ্ট কোনও সূত্র উল্লেখ না-করে বাংলাদেশের সংবাদ মাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে, কার্লাইলকে ভিসা না-দেওয়ার জন্য দিল্লিতে বিদেশ মন্ত্রকের কাছে সুপারিশ করেছেন ঢাকার ভারতীয় হাই কমিশনার। রবিবার রিজভি সেই প্রসঙ্গেই সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে ভারত-বিরোধী জিগির তোলেন। তিনি বলেন, ‘‘কার্লাইলকে ভারত ভিসা না-দিলে প্রমাণ হবে— বেগম জিয়াকে জেলে ঢোকানোর বিষয়ে এই হাই কমিশনের নেপথ্য ভূমিকা রয়েছে।’’ ভারতীয় হাই কমিশনকে শাসক দল আওয়ামি লিগের মু খপাত্র বলেও তিনি ঘুরিয়ে মন্তব্য করেন। ভারতীয় হাইকমিশন অবশ্য রিজভির মন্তব্যে কোনও প্রতিক্রিয়া জানায়নি।

গত মাসেই বিএনপি-র স্থায়ী কমিটির দুই নেতা দিল্লিতে গিয়ে সঙ্ঘ-ঘনিষ্ঠ বিজেপি নেতা রাম মাধবের সঙ্গে বৈঠক করে আসন্ন নির্বাচনে ‘সহযোগিতা’ চেয়ে গিয়েছেন। ভারত-বিরোধী রাজনীতির ধ্বজাধারী বিএনপি-র নেতাকর্মীদের মধ্যে এই নিয়ে বিভ্রান্তি চাপা থাকেনি। কিন্তু রবিবার সকালে রিজভির ভারত-বিরোধী জিগিরের দায়ভার কেউ নেননি। স্থায়ী কমিটির এক নেতা বলেন, ‘‘মন্তব্য রিজভির ব্যক্তিগত। দলের নেতৃত্ব তাঁর সঙ্গে একমত নন।’’

এর পরে বিকেলে আবার সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে নরম সুরে রিজভি বলেন, ‘‘একাত্তরে স্বাধীনতার যুদ্ধে ভারত যে ভাবে পাশে থেকেছে, আমি আশা করি সুষ্ঠু নির্বাচনের পথেও বাংলাদেশকে সে ভাবে তারা সাহায্য করবে। প্রতিবেশীদের সঙ্গে সুসম্পর্কে বিশ্বাসী বিএনপি।’’