রাখঢাক না-করে নয়াদিল্লিকে স্পষ্ট বার্তা দিল ঢাকা— বিএনপি–জামাত জোটের সঙ্গে সামান্য যোগাযোগ রাখাটাও ভারতের পক্ষে বিপজ্জনক হতে পারে।

গত মাসে ভারত সফরে এসেছিলেন বিএনপি-র স্থায়ী কমিটির দুই সদস্য। তাঁরা নয়াদিল্লিতে সঙ্ঘ-ঘনিষ্ঠ বিজেপি নেতা রাম মাধব এবং বিদেশ প্রতিমন্ত্রী এম জে আকবরের সঙ্গে দেখা করেছিলেন বলে রাজনৈতিক সূত্রের খবর। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক পরামর্শদাতা এইচ টি ইমাম আজ বিষয়টি নিয়ে সরব হয়েছেন। ‘অবজার্ভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন’ (ওআরএফ) আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে তিনি স্পষ্ট জানিয়েছেন, ‘‘আমি জামি যে বিএনপি নেতারা ভারতে এসেছিলেন। কারা এসেছিলেন তাও জানি, তবে নাম বলতে চাই না। এঁরা শুধু পাকিস্তান এবং সে দেশের গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই-র লোকই নন, চিনপন্থীও বটে। ভারতের স্বার্থের পক্ষে যা অত্যন্ত ক্ষতিকর।’’

বাংলাদেশে বিরোধী রাজনৈতিক দল বিএনপি পুরোপুরি ইসলামিক মৌলবাদীদের নিয়ন্ত্রণে চলে গিয়েছে বলেই দাবি হাসিনার উপদেষ্টার। তাঁর কথায়, ‘‘জামাতের মতোই মৌলবাদী জঙ্গিদের খপ্পরে চলে গিয়েছে বিএনপি। কোনও ধর্মনিরপেক্ষ সরকার এই দলকে সহ্য করতে পারে না। জামাতেরই একটি বর্ধিত অংশ এখন বিএনপি।’’ ভারতকে বার্তা দিয়ে হাসিনার উপদেষ্টা বলেন, ‘‘বাংলাদেশে ভোট এগিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে দেশের পাকিস্তানপন্থী শক্তিগুলি সক্রিয় হয়ে উঠেছে। গোটা পরিস্থিতির দিকে সরকার সতর্ক নজর রাখছে। নাশকতা শুরুর চক্রান্ত করছে এই অংশ। পাকিস্তান ভেঙে আমরা যে স্বাধীন বাংলাদেশ তৈরি করেছিলাম, সেটা ফের পাকিস্তানে ফিরে যাব বলে নয়!’’ ইমামের কথায়— ভোটের প্রচারে বিএনপি-জামাত জোট ভারত-বিরোধী তাস খেলবে, এটা আমরা জানি। বলা হবে হাসিনা সরকার ভারতের অনুগত এবং হিন্দু-পন্থী।

ভারতের সঙ্গে তিস্তা চুক্তি বকেয়া দীর্ঘদিন। অদূর ভবিষ্যতে এই চুক্তি বাস্তবায়িত করা যাবে, এমন ভরসাও ঢাকাকে দিতে পারছে না দিল্লি। কিন্তু তার কোনও নেতিবাচক প্রভাব সে দেশের ভোটে পড়বে না বলেই আজ দাবি করেন এইচ টি ইমাম।