এ বার থেকে ৫০ কোটি টাকার বেশি ঋণ নিলেই পাসপোর্ট সংক্রান্ত তথ্য বিশদে জানাতে হবে সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্ককে। অর্থ মন্ত্রক সব রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ককে দেওয়া এক নির্দেশে আগামী ৪৫ দিনের মধ্যে এই তথ্য জোগাড় করতে বলেছে।

অন্য দিকে, পিএনবি-কাণ্ডের ‘নায়ক’ নীরব মোদীর সংস্থা ফায়ারস্টার ডায়মন্ড মঙ্গলবারই দিল্লি হাইকোর্টে পাল্টা মামলা করেছে। তাদের বিরুদ্ধে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট টাকা নয়ছয়ের যে মামলা করেছে, তার বিরুদ্ধেই আদালত গেল ফায়ারস্টার। এ দিকে, পিএনবি কাণ্ডে এ বার মোদী ও তাঁর মামা মেহুল চোক্সীর লেনদেনের তথ্য জানতে তলব করা হল আইসিআইসিআই ব্যাঙ্ক ও অ্যাক্সিস ব্যাঙ্কের কর্ণধার ছন্দা কোছর ও শিখা শর্মাকে। পাশাপাশি, ওরিয়েন্টাল ব্যাঙ্ককে প্রতারণার ঘটনায় সিম্ভাওলি সুগারসের এমডি গুরসিমরন কউর মানকে এ দিন জেরা করেছে সিবিআই।

নীরব মোদী, তাঁর মামা মেহুল, বিজয় মাল্য, যতীন মেটার মতো আর কেউ যাতে ব্যাঙ্ক প্রতারণার পরে সহজে দেশ ছাড়তে না পারেন, তার জন্যই পাসপোর্টের তথ্য নেওয়ার এই নির্দেশ। যাঁদের পাসপোর্ট নেই, তাঁদের মুচলেকা দিয়ে সে কথা জানাতে হবে।

আজ রাজ্যসভায় এই প্রতারণা নিয়ে একগুচ্ছ প্রশ্ন তোলেন সাংসদ ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়। এর ধাক্কায় পিএনবি-র শেয়ার দরে ধস নিয়ে তাঁর প্রশ্নের লিখিত জবাবে অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির দাবি, ব্যাঙ্কটির আর্থিক ভিত মজবুত। জমা যথেষ্ট। খরচ-আয়ের অনুপাত কম। অনুৎপাদক সম্পদ স্থিতিশীল। ফলে বাজার থেকে লাভ ঘরে তোলার ক্ষমতা রয়েছে।

তাঁর প্রশ্নের উত্তরে পিএনবি-র প্রতারণার অঙ্ক ১২,৬৪৬ কোটি টাকা বলে জানালেও কবে তারা নীরবকে কত টাকা ঋণ দিয়েছিল, তা জানায়নি অর্থ মন্ত্রক। যুক্তি, রিজার্ভ ব্যাঙ্কের আইন অনুযায়ী তা জানানো যায় না।