সংসদীয় স্থায়ী কমিটির খসড়া রিপোর্টে কড়া সমালোচনা করা হয়েছিল কেন্দ্রের নোট বাতিলের সিদ্ধান্তের। বলা হয়েছিল, নোটবন্দির জেরে দেশের জিডিপি কমেছে এক শতাংশ বিন্দু। নগদের অভাবে অসংগঠিত ক্ষেত্রে কাজ হারিয়েছেন বহু মানুষ। এই কথা অস্বীকার করে কমিটির বিজেপি সাংসদদের দাবি, এটি সবচেয়ে বড় আর্থিক সংস্কার। সূত্রের খবর, এই বিতর্কের জেরেই এখনও পর্যন্ত গ্রহণ করা যায়নি ওই রিপোর্ট।

নোটবন্দিকে সমস্ত সংস্কারের চেয়ে বড় আখ্যা দিয়ে কমিটির সদস্য ও বিজেপি সাংসদ নিশিকান্ত দুবের দাবি, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন জানিয়েছেন দেশের সাধারণ মানুষ। এর ফলে কালো টাকার সরবরাহ কমেছে এবং মূল্যবৃদ্ধির উন্নতি হয়েছে।

উল্লেখ্য, নোটবন্দির সিদ্ধান্তের বিভিন্ন দিক খতিয়ে দেখতে কংগ্রেস সাংসদ বীরপ্পা মইলির নেতৃত্বে স্থায়ী কমিটি তৈরি করা হয়। সেখানে সদস্য হিসেবে রয়েছেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহ থেকে শুরু করে কংগ্রেসের বিভিন্ন সাংসদ। যাঁরা এই সিদ্ধান্ত নিয়ে ক্রমাগতই মোদী সরকারকে বিঁধেছেন। কিন্তু কমিটিতে বিজেপি সাংসদের সংখ্যা বেশি থাকার কারণেই খসড়া রিপোর্ট তৈরি হলেও, তা এখনও পর্যন্ত গ্রহণ করা যায়নি বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট সূত্র।