এখন উৎপাদন হয় দিনে মাত্র ৩০০ মেগাওয়াট। ২০২০ সালের মধ্যে বাড়ির ছাদে সৌরবিদ্যুৎ প্রকল্প গড়ে এই সংখ্যাটাই বাড়িয়ে ৪০ হাজার মেগাওয়াটে নিয়ে যেতে চায় কেন্দ্রীয় সরকার।

রবিবার বণিকসভা এমসিসি চেম্বার অব কমার্সের এক আলোচনাসভায় এ কথা জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় বিদ্যুৎমন্ত্রী পীযূষ গয়াল। তাঁর দাবি, ‘‘এই লক্ষ্যমাত্রা প্রাথমিক ভাবে অবিশ্বাস্য মনে হলেও, আগামী চার বছরের মধ্যে আমরা ঠিক তা ছুঁয়ে ফেলব।’’ এ প্রসঙ্গে মন্ত্রীর আরও দাবি, বাড়ির ছাদে সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনের ক্ষমতা সারা দেশে ১৩,০০০ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে।

বড় বাড়ি, স্কুল, বিশ্ববিদ্যালয়, সরকারি অফিস-সহ বিভিন্ন বাণিজ্যিক ভবনের ছাদে সৌর প্যানেল বসিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্রমশ সারা দেশেই জনপ্রিয় হচ্ছে। পশ্চিমবঙ্গেও রাজ্য সরকার সমস্ত সরকারি ভবনের ছাদে সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনের নীতি গ্রহণ করেছে। প্যানেল বসানো হচ্ছে বিভিন্ন সরকারি স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাদেও। বেশ কিছু বেসরকারি সংস্থাও বিভিন্ন বাড়ির ছাদে নিজেদের খরচে প্রকল্প গড়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন করে গ্রিডে বিক্রি করা শুরু করেছে। কেন্দ্রীয় সরকার মনে করছে, যে-ভাবে দেশ জুড়ে বড় সৌরবিদ্যুৎ প্রকল্পের পাশাপাশি ছোট ছোট উদ্যোগ চোখে পড়ছে, তাতে ওই লক্ষ্যে পৌঁছনো সম্ভব। যে-কারণে অপ্রচলিত শক্তি ক্ষেত্রকে কেন্দ্রীয় সরকার এখন সব থেকে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। সৌরবিদ্যুতের পাশাপাশি জল, বায়ুবিদ্যুৎ প্রভৃতি অপ্রচলিত শক্তির ক্ষেত্রেও উৎপাদন বৃদ্ধির দিকে নজর দিতে বিশেষ নীতি গ্রহণ করা হয়েছে।

মন্ত্রী এ প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের উত্তরে জানান, গ্রিডে অপ্রচলিত শক্তির ব্যবহার বাড়ানোর জন্য রাজ্যগুলিকে অনুরোধ করা হচ্ছে। অনেক রাজ্যই তা বাড়িয়েছে। গুরুত্বটা বুঝতে রাজ্যগুলির কিছুটা সময় লাগলেও, ভবিষ্যতে হয়তো তারা কেন্দ্রের নির্দেশ মেনে চলবে। তবে গয়াল এ দিন ইঙ্গিত দিয়েছেন, নিয়ম না-মানা হলে ভবিষ্যতে হয়তো বিদ্যুৎ ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় প্রকল্পগুলিতে যে-অনুদান দেওয়া হয়, তা ছাঁটাই করা হতে পারে।

গয়াল এ দিন দাবি করেন, জলবিদ্যুৎ বাদ দিলে ২০২২ সালের মধ্যে অপ্রচলিত শক্তি ক্ষেত্রে দেশের মোট উৎপাদন ক্ষমতা ১ লক্ষ ৭৫ হাজার মেগাওয়াটে নিয়ে যাওয়া হবে। প্রস্তাবিত নতুন জলবিদ্যুৎ প্রকল্পগুলিকে ধরলে সেই ক্ষমতা ২ লক্ষ ২৫ হাজার মেগাওয়াটে গিয়ে পৌঁছবে বলেও তাঁর দাবি।

অবশ্য মন্ত্রী জানান, এখনও পর্যন্ত বহু রাজ্যের বিদ্যুৎ বণ্টন সংস্থাই অপ্রচলিত শক্তি কিনতে চায় না। তাপবিদ্যুতের উপরেই তারা সব থেকে বেশি নির্ভরশীল। কেন্দ্রীয় সরকার বার বার রাজ্যগুলির গ্রিডে অপ্রচলিত শক্তির ব্যবহার বাড়ানোর কথা বললেও, তাতে লাভের লাভ তেমন হচ্ছে না বলে অভিযোগ মন্ত্রীর। অথচ এমন অনেক জলবিদ্যুৎ প্রকল্প রয়েছে, যেখানে বিদ্যুতের দাম তাপবিদ্যুতের থেকে অনেক সস্তা। এমনকী এক টাকার নীচেও অনেক সময়ে বিদ্যুতের ইউনিট কিনতে পাওয়া যায়। এ ব্যাপারে আরও বেশি সচেতনতা জরুরি বলে তিনি মনে করেন।