Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৮ অগস্ট ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

টাটা-মিস্ত্রি বাগ্‌বিতণ্ডা ফের তুঙ্গে

টাটা মোটরসের পরিচালন পর্ষদের বৈঠক বসছে সোমবার। তার আগে টাটাদের বিরুদ্ধে রবিবার ফের সুর চড়ালেন সাইরাস মিস্ত্রি। যার উত্তরে টাটা সন্সও পাল্টা

সংবাদ সংস্থা
মুম্বই ১৪ নভেম্বর ২০১৬ ০৩:২৫
Save
Something isn't right! Please refresh.
Popup Close

টাটা মোটরসের পরিচালন পর্ষদের বৈঠক বসছে সোমবার। তার আগে টাটাদের বিরুদ্ধে রবিবার ফের সুর চড়ালেন সাইরাস মিস্ত্রি। যার উত্তরে টাটা সন্সও পাল্টা দাবি করল, ‘মিস্ত্রিকে সরাতে সব ধরনের ব্যবস্থা নিতে’ তারা বদ্ধপরিকর ।

সাবেক ব্যবস্থা অনুসারে ক্ষমতার কেন্দ্রে থাকত টাটা সন্স। গত সপ্তাহেই টাটারা অভিযোগ করেছিল, মিস্ত্রি সংস্থা নিয়ন্ত্রণের এই চিরাচরিত কাঠামো ভাঙার চেষ্টা করেছিলেন। পাশাপাশি, নুসলি ওয়াদিয়ার মতো স্বাধীন ডিরেক্টরের সঙ্গে হাত মিলিয়ে টাটা গোষ্ঠীর ভিত নড়িয়ে দিতে চাইছেন বলেও তাদের অভিযোগ ছিল। তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সব অভিযোগই এ দিন খারিজ করে দিয়েছেন মিস্ত্রি। প্রসঙ্গত, টাটা স্টিল, টাটা মোটরস, টাটা কেমিক্যালসে স্বাধীন ডিরেক্টর হিসেবে রয়েছেন ওয়াদিয়া।

রবিবার এক বিবৃতিতে টাটা গোষ্ঠীর প্রাক্তন চেয়ারম্যানের দাবি, গোষ্ঠীর পরিচালন কাঠামো থেকে কখনওই সরে আসার চেষ্টা করেননি তিনি। ফলে টাটারা যে-অভিযোগ করেছে, তার কোনও ভিত্তি নেই। সংস্থার স্বাধীন ডিরেক্টররা প্রত্যেকেই ভারতের শিল্প ক্ষেত্রের দিকপাল। তাই তাঁদের ভূমিকা এবং কাজ নিয়ে যে-প্রশ্ন টাটারা তুলছে, তা কখনওই কাম্য নয় বলেও তাঁর দাবি। মিস্ত্রির মতে, পুরো বিষয়টিতে অভিযোগ আনার ক্ষেত্রে টাটারা যে এতটা নীচে নেমেছেন, তা দেখে অবাক হতে হয়। এই বিষয়টি দুর্ভাগ্যজনক বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

Advertisement

যদিও তাঁর এই বক্তব্যের পরেই রবিবার রাতে এক বিবৃতিতে ফের এক বার নিজেদের অবস্থানে স্থির থাকার কথা জানিয়েছে টাটা গোষ্ঠী। মিস্ত্রিকে সরাতে ‘যা করার তা-ই করা হবে’ বলেও এ দিন স্পষ্ট করেছে তারা। টাটা গোষ্ঠী, তাদের শেয়ারহোল্ডার এবং সব পক্ষের স্বার্থের কথা মাথায় রেখেই যাতে স্বাধীন ডিরেক্টররা নিজেদের সিদ্ধান্ত নেন, সে কথাও মনে করিয়ে দিয়েছে টাটা সন্স।



বৃহস্পতিবার ন’পাতার এক চিঠিতে মিস্ত্রির বিরুদ্ধে ক্ষমতা ‘কুক্ষিগত’ করার অভিযোগ তুলেছিল টাটা সন্স। চার বছর আগে যে-বিশ্বাসের সঙ্গে তাঁকে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল, এই কাজ তা ভাঙার সামিল বলে জানিয়েছিল তারা। যদিও এ দিনের বিবৃতিতে মিস্ত্রির পাল্টা দাবি, গোষ্ঠীর সংস্থাগুলি যাতে স্বাধীন ভাবে কাজ করতে এবং শেয়ারহোল্ডার-সহ সব পক্ষের ভালর কথা ভেবে সিদ্ধান্ত নিতে পারে, সে জন্যই উদ্যোগী হয়েছিলেন তিনি। সেই কারণেই সংস্থাগুলির পরিচালন পর্ষদে বাধ্যতামূলক ভাবে ৩০% টাটা ট্রাস্টের প্রতিনিধি এবং ৩০% স্বাধীন ডিরেক্টর নিযুক্ত করার পথে হেঁটেছেন। সংস্থার সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রেও পর্ষদের হাতে আরও দায়িত্ব তুলে দিতে চেয়েছিলেন। এর সঙ্গেই নিশ্চিত করতে চেয়েছিলেন শেয়ার লেনদেনে স্বচ্ছতার বিষয়টিও।

যে-ন’জন স্বাধীন ডিরেক্টর তাঁর পাশে দাঁড়িয়েছেন, তাঁদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন ওঠাতেও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মিস্ত্রি। মনে করিয়ে দিয়েছেন, ছোট লগ্নিকারীদের স্বার্থ সুরক্ষিত রাখা, সংস্থা পরিচালনায় খুঁত না-রাখা, সব বিষয়েই নিজেদের মত দেন এই ডিরেক্টররা। বিবৃতিতে তাঁর দাবি, এর মধ্যে ছ’জনই নিযুক্ত হয়েছিলেন ২০১২ সাল পর্যন্ত গোষ্ঠীতে রতন টাটা শীর্ষ পদে থাকার সময়ে। দু’জন টাটা ট্রাস্টের সদস্য।

উল্লেখ্য, ইন্ডিয়ান হোটেলস এবং টাটা কেমিক্যালসের স্বাধীন ডিরেক্টররা পাশে দাঁড়িয়েছেন সাইরাস মিস্ত্রির। টাটা কেমিক্যালসের স্বাধীন ডিরেক্টরদের মধ্যে রয়েছেন ওয়াদিয়া গোষ্ঠীর কর্ণধার নুসলি ওয়াদিয়া, ডিসিবি ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান নাসির মুঞ্জি, নাবার্ডের প্রাক্তন চেয়ারম্যান ওয়াই এস পি থোরাট প্রমুখ। আবার ইন্ডিয়ান হোটেলসের চেয়ারম্যান হিসেবে গত ৪ নভেম্বর মিস্ত্রির উপর পূর্ণ আস্থা জ্ঞাপন করেছিলেন এইচডিএফসি-র চেয়ারম্যান দীপক পারেখ-সহ ওই সংস্থার স্বাধীন ডিরেক্টররাও। এর পরেই ওয়াদিয়া এবং মিস্ত্রিকে বিভিন্ন সংস্থার পরিচালন পর্ষদ থেকে সরাতে তড়িঘড়ি বিশেষ সাধারণ সভা ডেকেছে টাটা গোষ্ঠী।

টাটা-মিস্ত্রি বিতর্কের মধ্যেই অবশ্য রতন টাটা পাশে পেয়েছেন টাটা মোটরস কর্মীদের। সোমবারের বৈঠকের আগে তাঁকে সমর্থন করেছে দু’টি কর্মী ইউনিয়ন। টাটা মোটরসের সিইও এবং ম্যানেজিং ডিরেক্টর গুন্টের বুট্সচেককে লেখা চিঠিতে মিস্ত্রিকে সরানো নিয়ে টাটা সন্সের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন প্রায় ১৬ হাজার কর্মী। গাড়ি সংস্থাটির বর্তমান পরিচালন ব্যবস্থা নিয়ে তাঁরা যে হতাশ, তা-ও স্পষ্ট করা হয়েছে পুণে এবং জামশেদপুর কারখানার কর্মীদের দুই চিঠিতে।

পুণে কারখানার কর্মীদের দাবি, এক সময়ে সংস্থা কর্তৃপক্ষ ও তাঁদের মধ্যে ভাল সম্পর্ক ছিল। কিন্তু গত ১৪ মাসে ছোটখাটো নানা কারণে সেই সম্পর্কের অবনতি হয়েছে। তা ফিরিয়ে আনতে রতন টাটার নেতৃত্বে ভরসা রাখার কথা চিঠিতে জানিয়েছেন তাঁরা।

একই সুর জামশেদপুরে টাটা মোটরস কর্মীদের পাঠানো চিঠিতেও। রতন টাটাকে নিজেদের ‘নেতা’ বলে মেনেছেন অধিকাংশই। ‘‘তাড়াতাড়ি হাঁটতে চাইলে একা হাঁটুন, কিন্তু বেশি দূর হাঁটতে চাইলে সবাইকে নিয়ে’’— রতন টাটার এই উদ্ধৃতি উল্লেখ করে তাঁদের দাবি, এই ‘অসময়ে’ তাঁরা টাটা সন্সের পাশে রয়েছেন। পাশাপাশি, ‘‘নেতৃত্ব দিতে গেলে মানুষের প্রতি স্নেহ থাকতে হবে’’— জে আর ডি টাটার এই কথাও উল্লেখ করা হয়েছে ওই চিঠিতে।

এই অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগের আবহে সোমবারের বৈঠকের দিকেই এখন চোখ সব মহলের।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Something isn't right! Please refresh.

Advertisement