সহযোগী পাঁচ ব্যাঙ্ককে নিজেদের সঙ্গে মেশানোর পরেই স্টেট ব্যাঙ্কের অনুৎপাদক সম্পদ দ্রুত বেড়েছে। এবং ২০১৭-১৮ সালে প্রথম বার লোকসানের মুখ দেখেছে তারা। বিভিন্ন রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের সংযুক্তির প্রতিবাদে ২৬ ডিসেম্বর দেশ জুড়ে ডাকা ব্যাঙ্ক ধর্মঘটের পক্ষে সওয়াল করতে গিয়ে এই উদাহরণই তুলে ধরছেন ইউনিয়ন নেতারা। ব্যাঙ্ক অব বরোদা, বিজয়া ব্যাঙ্ক এবং দেনা ব্যাঙ্ককে মেশানোর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে ওই ধর্মঘট ডেকেছে ইউনাইটেড ফোরাম অব ব্যাঙ্ক ইউনিয়ন্স (ইউএফবিইউ)।

তার আগে সংযুক্তির বিরোধিতায় ২১ তারিখেও ব্যাঙ্ক ধর্মঘট হওয়ার কথা অফিসারদের সংগঠন আইবকের ডাকে। সঙ্গে রয়েছে বেতন-সহ ১৪ দফা দাবিও।

ইউএফবিইউ-র ছাতার তলায় থাকা ইউনিয়ন এআইবিইএ-র সভাপতি রাজেন  নাগর এবং সাধারণ সম্পাদক সিএইচ বেঙ্কটচলম বলেন, ‘‘কেন্দ্রের যুক্তি সংযুক্তি ব্যাঙ্কগুলিকে শক্ত জমিতে দাঁড় করাবে। কিন্তু স্টেট ব্যাঙ্কের উদাহরণই প্রমাণ যে, এই দাবি ধোপে টেকে না।’’ তাঁদের আশঙ্কা, ব্যাঙ্ক অব বরোদা, বিজয়া ব্যাঙ্ক, দেনা ব্যাঙ্ককে মেশালে শক্তিশালী ব্যাঙ্কটিরও আর্থিক অবস্থা খারাপ হবে।