Advertisement
০৯ ডিসেম্বর ২০২২
Amit Mitra

Sukanta-Amit: জিএসটি নিয়ে বিতণ্ডা, সুকান্তকে জবাব অমিতের

পেট্রল-ডিজ়েলের দাম বৃদ্ধি নিয়ে আন্দোলনের হুঁশিয়ারির পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রীকে কেন্দ্রের উন্নয়নের প্রয়াসে শামিল হওয়ার বার্তা দিয়েছেন।

ফাইল চিত্র।

ফাইল চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ০৩ জুন ২০২২ ০৬:২৪
Share: Save:

কেন্দ্রের বিরুদ্ধে রাজ্যেকে বঞ্চনার অভিযোগ খারিজ করে বৃহস্পতিবার বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার দাবি করেন, রাজ্যের আর্থিক অগ্রগতির ঘাটতি মেটাতেই জিএসটি ক্ষতিপূরণ বাবদ বেশি অর্থ দিয়েছে কেন্দ্র। তাঁর এই দাবিকে উড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আর্থিক উপদেষ্টা অমিত মিত্রের পাল্টা দাবি, একাধিক রাজ্য পশ্চিমবঙ্গের চেয়েও বেশি ক্ষতিপূরণ পেয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর সঠিক নীতির ফলেই রাজ্যে জিএসটি খাতে আদায় বেড়েছে।

Advertisement

রাজ্যের তৃণমূল কংগ্রেসের সরকারের সঙ্গে সংঘাতের আবহ জারি রেখেছে বিজেপি। দলের রাজ্য সভাপতি পেট্রল-ডিজ়েলের দাম বৃদ্ধি নিয়ে আন্দোলনের হুঁশিয়ারির পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রীকে কেন্দ্রের উন্নয়নের প্রয়াসে শামিল হওয়ার বার্তা দিয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রীর আনা রাজ্যের প্রতি কেন্দ্রের বঞ্চনার অভিযোগ উড়িয়ে সুকান্ত এ দিন বলেন, ‘‘কেন্দ্র জিএসটি ক্ষতিপূরণ বাবদ রাজ্যকে ৬৫৯১ কোটি টাকা দিয়েছে। যা বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলির থেকে অনেক বেশি।’’

এই যুক্তি অবশ্য মানতে নারাজ অমিতবাবু। তাঁর মন্তব্য, ‘‘উনি বটানির অধ্যাপক। ওঁকে সম্মান করি। কিন্তু মহারাষ্ট্র পশ্চিমবঙ্গের দ্বিগুণেরও বেশি ক্ষতিপূরণ পেয়েছে। কর্নাটক, তামিলনাড়ু, উত্তরপ্রদেশের মতো রাজ্যগুলিও পশ্চিমবঙ্গের চেয়ে বেশি ক্ষতিপূরণ পেয়েছে। কেউ নিশ্চয় বলবেন না, ওই সব রাজ্যে শিল্প নেই!’’ গত এপ্রিল-মে মাসে এ রাজ্যে জিএসটি খাতে আদায় ১৯.২৩% বেড়েছে বলে দাবি করে অমিতবাবুর প্রশ্ন, পশ্চিমবঙ্গে শিল্প-বাণিজ্য ও আর্থিক কর্মকাণ্ড না বাড়লে এটা কি সম্ভব হত? তাঁর দাবি, মুখ্যমন্ত্রীর চাহিদা ভিত্তিক সঠিক আর্থিক নীতির কারণেই মানুষের হাতে অর্থ এসেছে। কেনাকাটা বৃদ্ধি পাওয়ায় জিএসটি বাবদআদায়ও বেড়েছে।

পাশাপাশি সংযুক্ত জিএসটি খাতে রাজ্যগুলির প্রাপ্য বকেয়া প্রায় ২৭,০০০ কোটি টাকা দাবি করে অমিতবাবুর বক্তব্য, সুকান্তবাবু এ রাজ্যেরই মানুষ। তাই এই প্রাপ্য যাতে দ্রুত মেলে সে ব্যাপারে তাঁরও উদ্যোগী হওয়া উচিত।

Advertisement

এ দিন তেলের দাম নিয়েও সরব হন সুকান্তবাবু। তাঁর হুঁশিয়ারি, ‘‘১৫ দিন সময় দিচ্ছি। এর মধ্যে রাজ্য যদি পেট্রলে লিটার পিছু ৫ টাকা ও ডিজ়েলে লিটার পিছু ১০ টাকা শুল্ক না কমায়, তা হলে নবান্ন ঘেরাও করব।’’ তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষের মন্তব্য, ‘‘আগে কেন্দ্র পেট্রল-ডিজ়েলের মূল দাম কমাক। আরও কর কমিয়ে রাজ্যের কর সমান করুক। বকেয়া ৯৭,০০০ কোটি টাকা দিক। রাজ্য আগামী পাঁচ বছরের জন্য পেট্রল-ডিজ়েল করমুক্ত করে দেবে।’’

সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তেফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ

Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.