পারিবারিক সম্পত্তির দখল নিতে মায়ের উপরে অত্যাচারের অভিযোগ উঠল ছেলে ও পুত্রবধূর বিরুদ্ধে। সম্প্রতি নরেন্দ্রপুর থানায় এই মর্মে অভিযোগ দায়ের করেছেন সেখানকার কাদারহাট এলাকার বাসিন্দা সতী মণ্ডল।

পুলিশ জানিয়েছে, সতীদেবীর অভিযোগ, তাঁর তিন কাঠা জমি রয়েছে। ছেলে ও বৌমা সেই জমি তাঁদের নামে লিখে দেওয়ার জন্য তাঁর উপরে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন চালাচ্ছেন। বিষয়টি ওই প্রৌঢ়া জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রীর দফতরেও। কিন্তু তাঁর অভিযোগ, এখনও পর্যন্ত কোনও ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ। যদিও নরেন্দ্রপুর থানার তরফে দাবি করা হয়েছে, সতীদেবীর ছেলে ও পুত্রবধূর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এর আগে একাধিক বার ওই প্রৌঢ়াকে বাড়িতেও ফিরিয়ে আনা হয়েছে। বছর ষাটের সতীদেবী বলেন, ‘‘ছেলের যখন এক বছর বয়স, তখন আমার স্বামী মারা যান। পরিচারিকার কাজ করে ছেলেকে বড় করেছি। এখন সেই ছেলেই আমাকে খেতে দেয় না। শৌচাগারে তালা দিয়ে দেয়। এই বয়সে শেষ সম্বল তিন কাঠা জমিও কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে।’’

যদিও সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন সতীদেবীর ছেলে শিবম মণ্ডল। তাঁর পাল্টা দাবি, বাড়ি বিক্রি করে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছেন তাঁর মা। সেই কারণে তাঁদের বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করতে চাইছেন। শিবম বলেন, ‘‘জমি লিখিয়ে নেওয়ার বিষয়টি মিথ্যা। আমি এক বেসরকারি সংস্থায় খুব কম বেতনের কাজ করি। বাড়ি বিক্রি হলে আশ্রয়হীন
হয়ে পড়ব।’’

নরেন্দ্রপুর থানা সূত্রে জানা গিয়েছে, শিবম ও তাঁর স্ত্রীর বিরুদ্ধে রুজু হওয়া মামলাটি মহকুমাশাসকের ট্রাইবুনালে পাঠানো হয়েছে। সেখানকার নির্দেশ অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ করা হবে।