এক রোগীর মৃত্যুতে চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ পেয়ে রাজ্য মেডিক্যাল কাউন্সিল কী ব্যবস্থা নিয়েছে তা জানতে চাইল কলকাতা হাইকোর্ট। বৃহস্পতিবার বিচারপতি দেবাংশু বসাক রাজ্য মেডিক্যাল কাউন্সিলের রেজিস্ট্রারকে নির্দেশ দিয়েছেন, কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তা আগামী ২ জুলাই তাঁর আদালতে হাজির হয়ে জানাতে।

গত বছর ৮ অগস্ট ঢাকুরিয়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হয় যাদবপুরের বিক্রমগড়ের বাসিন্দা বছর তেইশের যুবক সংলাপ দে-র। চিকিৎসায় গাফিলতির জেরেই ওই যুবক মারা গিয়েছেন বলে তাঁর পরিবার রবীন্দ্রনগর থানায় অভিযোগ জানায়। কিন্তু পুলিশ এফআইআর দায়ের করেনি বলে অভিযোগ।

সংলাপের বাবা নিরঞ্জনবাবুর আইনজীবী মণিশঙ্কর চট্টোপাধ্যায় জানান, পুলিশ আইনি ব্যবস্থা না নেওয়ায় মুখ্যমন্ত্রীর কাছে এবং স্বরাষ্ট্র দফতরে অভিযোগ জানানো হয়। কিন্তু তাতেও কাজ হয়নি। এর পরে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন নিরঞ্জনবাবু ও তাঁর স্ত্রী শম্পাদেবী।

এ দিন মামলার শুনানিতে রাজ্যের কৌঁসুলি অমিতেশ বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, স্বরাষ্ট্র দফতরের অতিরিক্ত সচিব কলকাতা পুলিশের এক ডেপুটি কমিশনারের কাছে ওই অভিযোগ পাঠিয়ে দেন। ওই কমিশনার সেটি পাঠান রাজ্য মেডিক্যাল কাউন্সিলের কাছে। বিষয়টি নিয়ে রাজ্য মেডিক্যাল কাউন্সিলের মতামত চাওয়া হয়। তা এখনও পাওয়া যায়নি।

কাউন্সিলের কৌঁসুলি শৈবালেন্দু ভৌমিক আদালতে জানান, মৃতের পরিবার নির্দিষ্ট কোনও চিকিৎসকের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানাননি। পরিবারের অভিযোগ প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। নিয়ম অনুযায়ী নির্দিষ্ট কোনও চিকিৎসকের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানাতে হয়। সব পক্ষের বক্তব্য শুনে ওই নির্দেশ দেন বিচারপতি বসাক।