‘ফণী’-র পূর্বাভাস মাথায় রেখে নিউ টাউন ও সল্টলেকে একগুচ্ছ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হল। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব এই রাজ্যে পড়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেছে আবহাওয়া দফতর। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এই নিয়ে নিউ টাউনে হিডকোর দফতরে একটি জরুরি বৈঠক হয়। 

হিডকো সূত্রের খবর, ৩ ও ৪ মে ইকো পার্কের কিছু জয় রাইড বন্ধ রাখা হবে। জলাশয়ের বিনোদনমূলক ব্যবস্থা ও বোটিং বন্ধ রাখা হচ্ছে। নৌকাগুলি ভাল ভাবে নোঙর করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে বিপর্যয় মোকাবিলা দলকে। এ ছাড়াও ওয়াচটাওয়ার থেকে নজর রাখা হবে। ঝড়ে বিপদ হতে পারে, এমন সব যন্ত্রও বন্ধ রাখা হতে পারে। কলকাতা গেটের ঝুলন্ত রেস্তরাঁয় ওই দু’দিনের বুকিং নেওয়া বন্ধ রাখা হয়েছে। কলকাতা গেটে কাউকে ওঠানামাও করতে দেওয়া হবে না। সল্টলেকের একটি বিনোদন পার্কেও ঝড়ের প্রকৃতি বুঝে বিভিন্ন রাইড, বিশেষত ওয়াটার পার্ক বন্ধ রাখা হতে পারে বলে পার্ক সূত্রের খবর।

হিডকো এবং নিউ টাউন কলকাতা ডেভেলপমেন্ট অথরিটি এলাকায় পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা হচ্ছে বলে সূত্রের খবর। খোলা হচ্ছে কন্ট্রোল রুম। গাছ পড়লে দ্রুত তা সরাতে প্রয়োজনীয় যন্ত্রও মজুত রাখা হবে। মাইকে প্রচার চালানো হবে পাঁচ নম্বর সেক্টর, নিউ টাউনে। ওই সব এলাকায় অস্থায়ী খাবারের দোকানের কর্মীদের দু’দিনের জন্য নিরাপদ আশ্রয়ে যাওয়ার কথা বলা হবে। অতিরিক্ত বৃষ্টির আশঙ্কায় পাম্পিং স্টেশনগুলির ব্যবস্থা খতিয়ে দেখা ও অতিরিক্ত পাম্প মজুত রাখা হচ্ছে। হিডকোর চেয়ারম্যান দেবাশিস সেন বলেন, ‘‘পরিস্থিতি মোকাবিলায় সব ব্যবস্থা করা হচ্ছে।’’

রাজারহাট-গোপালপুর এলাকাতেও বিধাননগর পুরসভা প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়েছে বলে জানান মেয়র সব্যসাচী দত্ত। পুরভবনেই কন্ট্রোল রুম খোলা হচ্ছে। হেলে থাকা কিংবা ঝুলে থাকা হোর্ডিং, ল্যাম্পপোস্টের ক্ষেত্রে দ্রুত পদক্ষেপ করা হচ্ছে।