ফাঁকা জমিতে ঢুকলেই শাস্তি। নিজেদের ফাঁকা জমি শহরের কোথায়-কোথায় রয়েছে, তা চিহ্নিত করে সেখানে এমনই বোর্ড ঝোলানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে কলকাতা পুরসভা। কারণ, দীর্ঘ দিন ধরে পড়ে থাকা জমিতে জবরদখলকারীর উপদ্রব ক্রমশ বাড়ছে বলে পুর প্রশাসন সূত্রের খবর। সেই জবরদখলকারীদের তুলতে গিয়ে আবার আলাদা হাঙ্গামা পোহাতে হচ্ছে।

পুর আধিকারিকদের একাংশ জানাচ্ছেন, শহরের অনেক জায়গায় পুরসভার এমন ফাঁকা জমি পড়ে রয়েছে যা এখনও চিহ্নিত করা হয়নি। যখন কোনও প্রকল্পের কাজের জন্য জমির প্রয়োজন হচ্ছে, তখন খোঁজ করে দেখা যাচ্ছে যে সংশ্লিষ্ট ফাঁকা জমিতে রীতিমতো জাঁকিয়ে বসেছে জবরদখলকারীরা। শুধু তা-ই নয়, অনেক জায়গার ফাঁকা জমি আবার আবর্জনায় ভরে থাকে। ফলে সেই জমি পরিষ্কার করাটা আবার আলাদা ঝক্কির কাজ। তাই এমন সমস্ত জমিকে আলাদা ভাবে চিহ্নিত করে সেখানে বোর্ড লাগানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে পুর প্রশাসন। সেই বোর্ডে স্পষ্ট লেখা থাকবে, ‘এই জমি পুরসভার। এখানে অনুপ্রবেশ শাস্তিযোগ্য অপরাধ।’ ওই বোর্ডগুলি এন্টালি ওয়ার্কশপে তৈরি করা হবে। তার পরে বরো ধরে ধরে চিহ্নিত জমিতে বোর্ডগুলি টাঙিয়ে দেওয়া হবে।

যদিও এ ভাবে বোর্ড ঝুলিয়ে জবরদখলকারীদের উপদ্রব ঠেকানো যাবে কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন পুর আধিকারিকদেরই একাংশ। তাঁদের বক্তব্য, জমি ফাঁকা পড়ে থাকলে সেগুলি জবরদখল হবেই। তেমনটাই সাধারণত হয়ে থাকে। 

অন্য অনেক সংস্থাও নিজেদের জমি বা সম্পত্তিতে এমন বোর্ড ঝুলিয়ে রাখে, তাতে কিন্তু সমস্যার সমাধান হয় না! এক পদস্থ আধিকারিকের বক্তব্য, ‘‘জমিতে বোর্ড ঝুলিয়ে এ সমস্যার সমাধান করা যাবে কি না, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। তার থেকে জমিতে যদি নিরাপত্তারক্ষীর ব্যবস্থা করা যায়, তা হলে কাজ হতে পারে। যদিও এত সংখ্যক নিরাপত্তারক্ষী নিয়োগের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ পুর কর্তৃপক্ষের রয়েছে কি না, সেটাও দেখার বিষয়।’’