দিনের ব্যস্ত সময়ে আচমকা বিদ্যুৎ চলে গেল নিউ গড়িয়ামুখী এসি রেকের একটি কামরায়। সোমবার দমদম থেকে বেলগাছিয়ার দিকে যাওয়ার পথে সাময়িক ওই বিভ্রাটে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন মেট্রোযাত্রীদের একাংশ। ওই অবস্থায় কিছুটা থেমে থেমেই প্রায় মিনিট পনেরো সময় নিয়ে দমদম থেকে বেলগাছিয়া পৌঁছয় ট্রেনটি। মাটির উপরের পাশাপাশি সুড়ঙ্গপথেও বেশ কিছুটা দূরত্ব বিদ্যুৎহীন অবস্থায় ছিল মেট্রোর ওই কামরা।

পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ফের যাত্রী নিয়ে নিউ গড়িয়ার দিকে রওনা দেয় ওই ট্রেন। ব্যস্ত সময়ে সাময়িক এই বিভ্রাটে দমদম থেকে বেলগাছিয়ার মধ্যে প্রায় আধ ঘণ্টা ট্রেন চলাচল ব্যাহত হয়।

কী ঘটেছিল ওই মেট্রোয়?

মেট্রো সূত্রের খবর, এ দিন দমদম থেকে নিউ গড়িয়ামুখী একটি এসি ট্রেন ছাড়ার কয়েক মিনিটের মধ্যেই বেলা সওয়া ১১টা নাগাদ আচমকা একটি কামরার বিদ্যুৎ চলে যায়। আলো এবং বাতানুকূল যন্ত্রও বন্ধ হয়ে যায়। ট্রেনটি তখনও সুড়ঙ্গে প্রবেশ করেনি। এ দিকে, মেট্রোর চালকও ওই কামরায় বিদ্যুৎ নেই বুঝতে পেরে আপৎকালীন ব্রেক কষেন। থমকে যায় ট্রেন। বিদ্যুৎহীন কামরায় জ্বলে ওঠে বিশেষ আপৎকালীন আলো। কিছু ক্ষণের চেষ্টাতেও পরিস্থিতি স্বাভাবিক হচ্ছে না বুঝতে পেরে চালক কন্ট্রোল রুমে যোগাযোগ করেন। ট্রেনটি দমদমের দিকে ফিরিয়ে আনার কথাও ভাবা হয়। পরে ডাউন লাইন দিয়ে সেটিকে দমদমের দিকে ফিরিয়ে না এনে বেলগাছিয়ার দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

ট্রেনটি বেলগাছিয়া পৌঁছলে সাময়িক ভাবে যাত্রীদের ওই কামরা থেকে নেমে আসতে বলা হয়।

মিনিট ১৫ পরে ট্রেনটি বেলগাছিয়া পৌঁছলে সাময়িক ভাবে যাত্রীদের ওই কামরা থেকে নেমে আসতে বলা হয়। কিছু পরে অবশ্য পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। ট্রেনটি যাত্রী নিয়ে নিউ গড়িয়ার দিকে রওনা হয়। 

তবে কামরার যাত্রীদের একাংশের অভিযোগ, বিদ্যুৎহীন অবস্থায় মেট্রোর তরফে কোনও ঘোষণা করা হয়নি। বেশ কয়েক মিনিট পরে কামরায় ব্লোয়ার চালিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া হয়। মেট্রো রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক ইন্দ্রাণী বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “কামরার ব্যাটারি সাময়িক ভাবে বিকল হওয়াতেই ওই সমস্যা দেখা দিয়েছিল।”