কয়েক দিন ধরে লাগাতার অবস্থান বিক্ষোভের পরে সোমবার শিশু শিক্ষা কেন্দ্র (এসএসকে) এবং মাধ্যমিক শিক্ষা কেন্দ্রের (এমএসকে) শিক্ষকেরা সল্টলেকের বিকাশ ভবনে ঢোকার চেষ্টা করলে রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় ওই এলাকা। পুলিশের ব্যারিকেড সরিয়ে বিকাশ ভবন পর্যন্ত পৌঁছেও যান বিক্ষোভকারীরা। পুলিশের সঙ্গে রীতিমতো ধস্তাধস্তি হয় তাঁদের। বেশ কিছু ক্ষণ ধরে এই গণ্ডগোল চলে। শেষে বিকাশ ভবনের সামনে বিক্ষোভকারীরা আবার অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করেন। বিকেলে অবশ্য উন্নয়ন ভবনের কাছে ফিরে গিয়ে অবস্থানে বসেন তাঁরা।

বিক্ষোভকারীরা জানিয়েছেন, শিক্ষা দফতরের প্রধান সচিব আলোচনার আমন্ত্রণ জানালেও তাঁরা যাবেন না। বেতন বৃদ্ধির দাবি মেনে নেওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। শিক্ষা দফতরকে আরও দু’দিন সময় দিচ্ছেন তাঁরা। তার মধ্যে দাবি মেনে কার্যকর করা না হলে বৃহস্পতিবার ফের বিকাশ ভবন অভিযান করবেন তাঁরা। প্রয়োজনে নবান্ন অভিযানেও যাওয়া হবে। 

এ দিকে, পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে তিন জন বিক্ষোভকারী আহত হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন বিক্ষোভকারীরা। তাঁদের বিধাননগর মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চের সভাপতি সুজিত দাস বলেন, ‘‘আমাদের বেতন বৃদ্ধির দাবি মেনে নেওয়া না হলে এই ধর্না ও অবস্থান বিক্ষোভ চলবে।’’

সারা রাজ্যে প্রায় ২৫ হাজার শিশু শিক্ষা কেন্দ্র (এসএসকে) ও মাধ্যমিক শিক্ষা কেন্দ্রের (এমএসকে) শিক্ষক রয়েছেন। ওই শিক্ষকদের অভিযোগ, বর্তমান সরকার যখন থেকে ক্ষমতায় এসেছে, অর্থাৎ গত আট বছর ধরে তাঁদের বেতন বাড়েনি। শিশু শিক্ষা কেন্দ্রের শিক্ষকদের বেতন ৫৪০০ টাকা এবং মাধ্যমিক শিক্ষা কেন্দ্রের শিক্ষকদের বেতন ৮৯০০ টাকা। বিক্ষোভকারীদের দাবি, এসএসকে এবং এমএসকে স্কুলগুলিতে ১৮ লক্ষ ছাত্রছাত্রী পড়াশোনা করে। তাঁদের বেতন কাঠামো প্রাথমিক শিক্ষক ও উচ্চ প্রাথমিক শিক্ষকদের মতো করতে হবে। শিক্ষকদের বিকাশ ভবনের সামনে এই বিক্ষোভ অবস্থান শুরু হয় গত বুধবার থেকে।