কলকাতায় মাদক পাচারচক্রের আরও দুই পাণ্ডাকে গ্রেফতার করল কলকাতা পুলিশ। 

মঙ্গলবার রাত ১২টা নাগাদ পার্ক স্ট্রিট থানা এলাকার রয়েড স্ট্রিট থেকে শেখ লতিফুদ্দিন এবং শেখ রাজা নামে ওই দু’জনকে গ্রেফতার করেছে কলকাতা পুলিশের মাদক দমন শাখা। ধৃতদের থেকে প্রায় দু’লক্ষ ১৫ হাজার টাকার ব্রাউন সুগার উদ্ধার হয়েছে বলে লালবাজার সূত্রে জানানো হয়েছে। ধৃতদের বুধবার ব্যাঙ্কশাল আদালতে তোলা হয়ে ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক।

শহরের একাধিক শিক্ষাঙ্গনে অবাধে মাদক পাচার চলছে বলে লোকসভা ভোটের সময়ই খবর পেয়েছিল লালবাজার। গোপনে নজরদারি চালিয়ে চলতি মাসের শুরুতে পড়ুয়া-সহ মোট পাঁচ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সেই সঙ্গে দক্ষিণ কলকাতার আশুতোষ কলেজ চত্বর থেকে মাদক কারবারি সন্দেহে গ্রেফতার করা হয় আরও তিন জনকে। তাদের সূত্র ধরেই এর পরে গার্ডেনরিচ এবং একবালপুর থেকে আরও দু’জনকে পুলিশ গ্রেফতার করে। লালবাজার সূত্রের খবর, সেই ধৃতদের জেরা করেই লতিফুদ্দিন এবং রাজার খোঁজ পায় পুলিশ।

এক তদন্তকারী আধিকারিক জানান, বছর সাঁইত্রিশের লতিফুদ্দিন আলিমুদ্দিন স্ট্রিটের বাসিন্দা। সাতচল্লিশ বছরের রাজা থাকে হুসেন শাহ রোডে। বেশ কয়েক দিন ওই দু’জনের উপরে নজরদারি চালিয়ে দেখা যায়, মূলত তরুণ-তরুণীরাই মাদক কিনছেন তাদের থেকে। মোবাইলে যোগাযোগ করে শহরের নির্দিষ্ট কয়েকটি জায়গায় ক্রেতাদের পৌঁছে যেতে বলত লতিফুদ্দিনেরা। তার পরে তাদের থেকে কেনা মাদক বেশ কয়েক বার হাত ঘুরে পৌঁছে যেত আরও অনেকের কাছে। শহরের বেশ কয়েকটি নাইট ক্লাবেও লতিফুদ্দিনেরা মাদক পাচার করত। পুলিশ জানতে পেরেছে, লালগোলা থেকে মাদক পাচার করত ধৃতেরা। এক পুলিশ আধিকারিকের কথায়, ‘‘নজরদারি চালিয়ে মঙ্গলবার রাতে হাতেনাতে ধরা হয় এদের। লতিফুদ্দিনের কাছ থেকে ২৫৫ গ্রাম ব্রাউন সুগার পাওয়া গিয়েছে। যার বাজারদাম আনুমানিক ২ লক্ষ টাকা। শেখ রাজার থেকে মিলেছে ২০ গ্রাম ব্রাউন সুগার, যার বাজারমূল্য ১৫ হাজার টাকা।’’ 

নতুন পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা দায়িত্ব নেওয়ার পরে কলকাতা পুলিশের বিভিন্ন শাখার সঙ্গে বৈঠক করেছেন। সেখানে মাদকচক্র রুখতে পুলিশকে বিশেষ তৎপর হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। বিভিন্ন কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের মাদক থেকে দূরে রাখতে সচেতনতা কর্মসূচি করারও পরিকল্পনা রয়েছে পুলিশের।