• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

বাংলা আবাস যোজনা

ঢুকতে পারে ভুয়ো নাম, আশঙ্কা মন্ত্রীর

Ceremony
হাটগোবিন্দপুরে বাড়ির শংসাপত্র দেওয়ার অনুষ্ঠান। নিজস্ব চিত্র

Advertisement

আবাস যোজনার ঘরের তালিকায় ‘ভুয়ো’ নাম ঢুকে যাওয়ার যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে, আশঙ্কা প্রকাশ করলেন রাজ্যের মন্ত্রী তথা পূর্ব বর্ধমান জেলা তৃণমূল সভাপতি স্বপন দেবনাথ। ওই মঞ্চ থেকে আগামী পঞ্চায়েত ভোটের বার্তাও দিলেন জেলা সভাধিপতি দেবু টুডু।

সোমবার বর্ধমান ২ ব্লকের হাটগোবিন্দপুরে জেলা স্তরের বাংলা আবাস যোজনার ঘরবিলির কর্মসূচি ছিল। জেলা প্রশাসনের কর্তাদের সামনেই মন্ত্রী বলেন, ‘‘খাদ্যসাথী প্রকল্পের তালিকায় অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকের নামও রয়েছে! দু’টাকা কেজি দরের চাল নেওয়ার জন্য তথাকথিত বড়লোকের নাম ঢুকে গিয়েছিল। সে রকমই আবাস যোজনা প্রকল্পের তালিকাতেও ভুয়ো নাম ঢুকে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। জেলাশাসকের কাছে আমার অনুরোধ, সঠিক লোক যাতে ঘর পায়, তা দেখতে হবে।’’

এ দিন রাজ্য স্তরের অনুষ্ঠানটি হয়েছে নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে। সেখানে মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য সরাসরি দেখানো হয় হাটগোবিন্দপুরে। গোটা রাজ্যে এ দিন ৫ লক্ষ উপভোক্তার হাতে আবাস যোজনার শংসাপত্র তুলে দেওয়া হবে, সে কথা বর্ধমানে মাটি উৎসবের মঞ্চেই ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সে জন্য শুধু হাটগোবিন্দপুর নয়, জেলার ২৩টি ব্লকেই এ দিন কর্মসূচি পালিত হয়। এ দিন হাটগোবিন্দপুরে ১৩৪৩ জনের হাতে শংসাপত্র তুলে দেওয়া হয়। পূর্ব বর্ধমানে এ দিন বাড়ি পেলেন ৫০,১৮৫ জন। জেলাশাসক অনুরাগ শ্রীবাস্তব বলেন, ‘‘সকলকে ভাল রাখার জন্য মুখ্যমন্ত্রী চেষ্টা করছেন। আপনাদের পাশে বর্ধমান জেলা প্রশাসনও রয়েছে।’’

জেলা সভাধিপতি দেবু টুডু এ দিন পঞ্চায়েত ভোট নিয়ে বার্তাও দিলেন এই মঞ্চ থেকে। তিনি বলেন, ‘‘পঞ্চায়েত-ব্লক-জেলা, প্রতিটি স্তর থেকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। তাই আপনাদের ঠিক করতে হবে, অন্য শক্তি মাথা চাড়া দিতে না পারে। মুখ্যমন্ত্রীর হাত শক্ত করার জন্য আগামী দিনেও পঞ্চায়েত থেকে জেলা পরিষদ আমাদের হাতে রাখতে হবে। সে জন্য এখন থেকে আপনারা আন্দোলনে নেমে পড়ুন।’’

হঠাৎ আবাস যোজনায় ‘ভুয়ো’ নাম ঢুকে যাওয়ার আশঙ্কা মন্ত্রী প্রকাশ করলেন কেন? ভাতারের এক সভায় বিজেপি নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়ের অভিযোগ, ‘‘সামাজিক বিভিন্ন প্রকল্পে দুর্নীতি করেই চলেছে তৃণমূল। প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার নাম বদলে দিয়েছে। পঞ্চায়েত স্তরে সেই দুর্নীতির ভূতই তাড়া করে বেড়াচ্ছে তৃণমূলকে।’’ সিপিএমের জেলা কমিটির এক সদস্যের কথায়, ‘‘দু’এক দিনের মধ্যেই আবাস যোজনার দুর্নীতি বেরোবে। সেটা আটকাতেই প্রশাসনের উপরে চাপ তৈরির চেষ্টা।’’ স্বপনবাবুর যদিও ব্যাখা, ‘‘বাম জমানায় লাল কালিতে লেখা থাকত, খাদ্য চাই, বাসস্থান চাই। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সকলের জন্য খাদ্য-বাসস্থানের ব্যবস্থা করছেন। সেখানে যেন প্রকৃত গরিব মানুষেরা বাদ না যান, সে কথাই বলতে চেয়েছি।’’

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন