বাসের সংখ্যা বাড়িয়ে ও পরিষেবার মানোন্নয়ন করে সংস্থার বার্ষিক আয় বাড়ানোর লক্ষ্যে ‘ভিশন ২০২৫’ প্রকল্প নিয়েছে দক্ষিণবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ সংস্থার (এসবিএসটিসি) পরিচালন বোর্ড। সংস্থার চেয়ারম্যান তমোনাশ ঘোষ সম্প্রতি বলেন, ‘‘গত আর্থিকবর্ষে সংস্থার আয় হয় প্রায় ১৭৩ কোটি টাকা। ২০২৫ সালে তা ৩৩০ কোটিতে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে।’’

এসবিএসটিসি সূত্রে জানা গিয়েছে, গত আর্থিকবর্ষে প্রতি কিলোমিটার বাস চালাতে খরচ হয়েছিল ২৩ টাকা ৬০ পয়সা। আয় হয় ২৬ টাকা ৫১ পয়সা। অর্থাৎ লাভ, ২ টাকা ৯১ পয়সা। এই পরিস্থিতিতে আগামী ছ’টি অর্থবর্ষে আয় প্রায় দ্বিগুণ করার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে। এ জন্য গৃহীত পরিকল্পনা চূড়ান্ত করতে সংস্থার বিভিন্ন দফতরের পদাধিকারীদের নিয়ে বিশেষ দল তৈরি করা হয়। সেই দলই পরিকল্পনা চূড়ান্ত করে। বিভিন্ন বিষয়ে লক্ষ্যমাত্রা সামনে রেখে কাজও শুরু হয়েছে বলে সংস্থার দাবি।

সংস্থা সূত্রে জানা যায়, গত আর্থিকবর্ষে ৭২১টি চালু বাস ছিল। এ বছর তা ৮৭১টি করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। ২০২৫ পর্যন্ত ধাপে ধাপে তা ১,২৩১টি করা হবে বলে ঠিক হয়েছে। তা ছাড়া, গত আর্থিকবর্ষে ৩২৪টি রুট ছিল। তা এ বার ৫০টি বাড়ানো হবে। গৃহীত প্রকল্প অনুযায়ী, ২০২৫-এ তা করা হবে ৬২৪টি। তমোনাশবাবু জানান, যে যে এলাকায় এখনও পরিবহণ ব্যবস্থা সে ভাবে তৈরি হয়নি, সেই সব জায়গায় বাস চালানোর ক্ষেত্রে গুরুত্ব দেওয়া হবে। এ ভাবে চললে বর্তমান হিসেবে মোট যাতায়াতের পথ ৬৪৭ লক্ষ কিলোমিটার বেড়ে ২০২৫-এ প্রায় ১,০৪৪ লক্ষ কিলোমিটার হবে। তবে সংস্থা সূত্রে জানা যায়, চলতি আর্থিকবর্ষে প্রতি কিলোমিটার বাস চালিয়ে গড়ে ২ টাকা ৫ পয়সা আয় হবে বলে অনুমান। পরের বছর তা তিন টাকা, ২০২৫-এ চার টাকা ২৩ পয়সা করার লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে।

তবে সংস্থার কর্তারা জানান, অন্য ভাবেও খরচ কমানোর পরিকল্পনা রয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সংস্থার এক আধিকারিক বলেন, ‘‘চালু বাসের সংখ্যা আগামী ছয় বছরে প্রায় পাঁচশোটি বাড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে। বাসের চালক, কন্ডাক্টর ও সহকারীর সংখ্যা সেই অনুপাতে বাড়বে না। এখন যা ২,২৬৩। তখন তা বাড়বে মাত্র দু’শো জন। এখন একটি বাসের পিছনে কর্মী সংখ্যার গড় ৩.১৪ জন। ২০২৫-এ তা হবে ২.১২ জন।’’

সংস্থার চেয়ারম্যান তমোনাশবাবু জানান, যাত্রী পরিষেবার মানোন্নয়নে সব বাসে ‘জিপিএস’ ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। ‘অ্যাপ’-এর মাধ্যমে বাস কোথায় রয়েছে, তা যাত্রীরা জানতে পারছেন। মোবাইল থেকে টিকিট বুকিংয়ের জন্য ‘এসবিএসটিসি স্মার্ট ব্যালান্স’ পরিষেবা চালু করা হয়েছে। যাত্রীদের পরিষেবা নিয়ে অনলাইনে বা ‘সোশ্যাল মিডিয়া’র ‘পেজ’-এ যাত্রী-অভিযোগ দ্রুত খতিয়ে দেখবে কেন্দ্রীয় কন্ট্রোল রুম।

আইএনটিটিইউসি নেতা উত্তম মুখোপাধ্যায়ের দাবি, ‘‘এই নতুন পরিকল্পনা সংস্থাকে আরও মজবুত ভিত্তির উপরে দাঁড় করাবে।’’ বিএমএসের জেলা নেতা অসীম প্রামাণিকের অভিযোগ, ‘‘সংস্থায় নানা অনিয়ম রয়েছে। ফলে পরিকল্পনা অনেক থাকলেও রূপায়ণ কিছুই হবে না আমাদের আশঙ্কা।’’