সহকর্মী শিক্ষিকার সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার প্রতিবাদ করায় স্ত্রীকে মারধর এবং পরে খুনের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল আরামবাগের পুইন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তরুণ পূজারীর বিরুদ্ধে। বুধবার তরুণবাবুকে স্কুল চত্বরেই ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখালেন গ্রামবাসী। সেখানে উপস্থিত ছিলেন তরুণবাবুর স্ত্রী অপর্ণাদেবীও। পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।   

বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ, শিক্ষিকার সঙ্গে অধিকাংশ সময়েই তরুণবাবু মশগুল থাকায় স্কুলের পঠনপাঠন শিকেয় উঠেছে। এত গরমে সকালে স্কুল করার দাবি জানানো হলেও তা মানা হয়নি। এ সবেরই প্রতিবাদ জানানো হয়েছে। যাবতীয় অভিযোগ তরুণবাবু অস্বীকার করেছেন। তাঁর দাবি, ‘‘স্ত্রী এবং গ্রামবাসীর অভিযোগ ঠিক নয়। স্কুলে পঠনপাঠনেও কোনও গাফিলতি নেই। সহকর্মীদের সঙ্গে যেমন ঘনিষ্ঠতা দরকার, সেটাই সকলের সঙ্গে বজায় রাখি।”

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, তরুণবাবুদের বাড়ি আরামবাগের রবীন্দ্র পল্লিতে। এ দিন দুপুরে অপর্ণাদেবী পুইন গ্রামে 

আসেন। গ্রামবাসীদের কাছে স্বামীর সঙ্গে ওই স্কুলের এক শিক্ষিকার বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের কথা জানান এবং অভিযোগ করেন, প্রতিবাদ করায় তাঁকে মারধর করা হয়। দিন দুয়েক আগে ওই অভিযোগ থানাতেই জানিয়েছিলেন অপর্ণাদেবী। এ সব শুনেই গ্রামবাসীরা তাঁকে নিয়ে স্কুলে যান। পুলিশ জানায়, ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

অপর্ণাদেবী বলেন, ‘‘স্বামীর ওই বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের প্রতিবাদ করায় মার খেয়ে থানায় অভিযোগ করেছিলাম। পুলিশ মঙ্গলবারই বাড়ি গিয়ে ওকে সতর্ক করে। তারপরেও ও আমাকে খুন করার হুমকি দিয়েছে। বাধ্য হয়েই ওঁর স্বরূপ জানাতে পুইন গ্রামে যাই।’’