হাওড়া শহরে পানীয় জলের মূল উৎস পদ্মপুকুর জলপ্রকল্প। আশির দশকে তৈরি হওয়া এই প্রকল্পের সরবরাহ করা পানীয় জলই মূলত ব্যবহার করেন হাওড়া পুরসভার ৬৬টি ওয়ার্ডের বাসিন্দারা। জলপ্রকল্পের ভিতরে ও বাইরের পাইপলাইনে অজস্র ছিদ্র দেখা দিয়েছে। জরুরি ভিত্তিতে সেগুলি সারাইয়ের পাশাপাশি রক্ষণাবেক্ষণ প্রয়োজন হয়ে পড়েছে জল তোলার পাম্পগুলিরও। আসন্ন উৎসব, বিশেষত দুর্গাপুজোর মরসুমে শহরে জল সরবরাহে যাতে কোনও রকম বিঘ্ন না ঘটে, সে জন্য ত্রুটি দূর করতে সচেষ্ট হয়েছে পুরসভা। এর জন্য কাল, বুধবার বেলা ১২টা থেকে বৃহস্পতিবার বেলা ১২টা পর্যন্ত হাওড়া শহরে জল সরবরাহ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সোমবার এ খবর জানিয়ে ওই প্রকল্পের দায়িত্বে থাকা ৪০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তথা ৬ নম্বর বরোর চেয়ারম্যান সৈকত চৌধুরী বলেন, কোন কোন জায়গায় ত্রুটি রয়েছে, তার একটি তালিকা তৈরি করা হয়েছে। তাঁর কথায়, ‘‘জলপ্রকল্পের ইনটেক পয়েন্ট অর্থাৎ গঙ্গার যেখান থেকে জল তুলে পাইপলাইনের মাধ্যমে প্রকল্পে পাঠানো হয়, সেই পয়েন্টের সব ক’টি পাম্পের আশু মেরামতি প্রয়োজন। গোটা কাজ ২৪ ঘণ্টার মধ্যে করার চেষ্টা চলছে।’’

পুরসভার বক্তব্য, হাওড়া শহরে জল সরবরাহ বাড়ানোর জন্য আরও দু’টি এক কোটি গ্যালন ক্ষমতাসম্পন্ন জলপ্রকল্পের কাজও শুরু হয়েছে। এর জন্য পদ্মপুকুর প্রকল্প থেকে দু’টি পাইপ নাজিরগঞ্জ পাম্প হাউসে আনতে হবে। দানেশ শেখ লেনের মোড় থেকে সেগুলি পাতার কাজ শুরু হয়েছে। আন্দুল রোডে প্রায় সওয়া কিলোমিটার রাস্তা খুঁড়ে তা বসানো হচ্ছে। সৈকতবাবু বলেন, ‘‘ডিসেম্বরের মধ্যে নতুন প্রকল্প দু’টির কাজ শেষ হওয়ার কথা। এগুলি চালু হয়ে গেলে আগামী গ্রীষ্মে জলকষ্ট থাকবে না।’’