সামনেই বোরো মরসুম। তার আগেই জেলার কৃষকদের হাতে মাটি পরীক্ষার রিপোর্ট ‘মাটির হেল্থ কার্ড’ তুলে দেবে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা কৃষি দফতর। ইতিমধ্যেই জেলার রামনগর-২, কাঁথি-৩ পটাশপুর ও কোলাঘাট ব্লকের কয়েক হাজার চাষির হাতে ওই কার্ড তুলে দেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। কাঁথি-৩ ব্লকের লাউদা ও কুমিরা গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় মঙ্গলবার মাটির হেল্থ কার্ড বিতরণ করা হয়।

জেলা কৃষি দফতরের সহ-কৃষি অধিকর্তা মৃণালকান্তি বেরা বলেন, “মাটির হেল্থ কার্ডের মাধ্যমে কৃষকরা তাদের জমির ধরন সম্পর্কে জানতে পারবেন। জমিতে অম্ল, ক্ষার ও লবণের পরিমাণ জানা যাবে। তা ছাড়া জৈবপদার্থের পরিমাণ, মুখ্য, গৌণ্য অনুখাদ্যের উপস্থিতি সম্পর্কেও জানা যাবে। তার ফলে ওই জমিতে চাষের সময় কী সার ঠিক কতটা পরিমাণে প্রয়োগ করতে হবে, তা নিশ্চিত হতে পারবেন কৃষক।’’

কৃষির সঙ্গে যুক্ত জেলার সমস্ত মানুষকে মাটির স্বাস্থ্যের গুরুত্ব উপলব্ধি করানোর উদ্দেশ্যে ৫ ডিসেম্বর বিশ্ব মৃত্তিকা দিবস পালিত হয়েছে। সে দিন থেকেই জেলা জুড়ে আলোচনা চক্র, হেল্থ কার্ড বিতরণের কর্মসূচি
নেওয়া হয়েছে।

জেলা কৃষি সহ-অধিকর্তা (মৃত্তিকা সংশোধন) সুশান্ত মাইতি বলেন, “প্রথম পর্যায়ে জেলার ১৩,৬০৫ জন কৃষকের হাতে মাটির হেল্থ কার্ড তুলে দেওয়ার কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। পর্যায়ক্রমে বাকিদের হাতেও ওই কার্ড তুলে দেওয়া হবে।”