বিদ্যাসাগরের জন্মের দ্বিশতবর্ষ উপলক্ষে মঙ্গলবার বীরসিংহে আসার কথা রয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। তার প্রস্তুতি দেখতে শনিবার বীরসিংহে ঘুরে গেলেন জেলাশাসক রশ্মি কমল ও পুলিশ সুপার দীনেশ কুমার। এ দিন তাঁরা নিরাপত্তা-সহ অনুষ্ঠানের নানা বিষয় নিয়ে বৈঠক করেন। ছিলেন জেলা পরিষদের সহ সভাধিপতি অজিত মাইতি।

মুখমন্ত্রীর সফরের আগে বীরসিংহে এখন সাজ সাজ রব। জোরকদমে নতুন রাস্তাঘাট হচ্ছে। বসছে পথবাতি। এই সফরের আগে গ্রামবাসীদের ক্ষোভ-বিক্ষোভ সামনে আসায় কোনও ঝুঁকি নিতে রাজি নয় জেলা প্রশাসন। বীরসিংহের বাসিন্দাদের সঙ্গে নিজে কথা বলেছেন জেলাশাসক। গ্রামের অনেকের সঙ্গে জেলাশাসক নিজে যোগাযোগ রেখেছেন। শনিবারও এলাকার উন্নয়ন-সহ নানা বিষয়ে খোঁজ নেন তিনি। এ দিন বীরসিংহে আইটিআইয়ে প্রশাসনের আধিকারিকদের নিয়ে বৈঠক করেন জেলাশাসক। সেখানে বিভিন্ন দফতরের আধিকারিকদের দায়িত্ব বুঝিয়ে দেওয়া হয়। ২৪ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠানের দিনে কতজন উপভোক্তা আসবেন, সেই নিয়ে আলোচনা হয়। জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, ২৪ সেপ্টেম্বর দুপুর ১২টার পরে সিংহডাঙা মোড় থেকে বীরসিংহ যাওয়ার রাস্তাটি বন্ধ করে দেওয়া হবে। ওই দিন বীরসিংহে আসতে হলে খড়ার ঘুরে আসতে হবে। 

এ দিন মেদিনীপুর শহরের ক্ষুদিরাম পরিকল্পনা ভবনের সভাঘরেও মুখ্যমন্ত্রীর সফর সংক্রান্ত একটি বৈঠক হয়। সেখানেও ছিলেন জেলাশাসক। এছাড়া ছিলেন অতিরিক্ত জেলাশাসক, মহকুমাশাসক, বিডিও, বিধায়ক, জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ, পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতিরা। সেখানে জেলার উন্নয়নমূলক কাজকর্মের পর্যালোচনা হয়েছে বলে প্রশাসনের এক সূত্রে খবর। কোনও প্রকল্পের কাজে কোথাও কোনও সমস্যা রয়েছে কি না তাও খতিয়ে দেখা হয়েছে। জেলা পরিষদের সহ সভাধিপতি অজিত মাইতি বলেন, ‘‘শনিবার মেদিনীপুরের প্রশাসনিক বৈঠকে জেলার উন্নয়নের বিভিন্ন দিক নিয়ে বৈঠকে বিভিন্ন প্রকল্পের পর্যালোচনা  হয়েছে।’’ 

বিদ্যাসাগরের জন্ম দ্বিশতবর্ষের অনুষ্ঠানের পরের দিন ২৫ সেপ্টেম্বর ডেবরায় তাঁর প্রশাসনিক বৈঠক রয়েছে।