পারিবারিক জমিজমা সংক্রান্ত বিবাদের জেরে খুড়তুতো ভাইয়ের স্ত্রী’কে গুলি করার অভিযোগ উঠল জেঠতুতো ভাইয়ের বিরুদ্ধে। গুলিটি লক্ষ্যভ্রষ্ট হওয়ায় প্রাণে বেঁচে যান ওই মহিলা। শুক্রবার সন্ধ্যায় ঘটনাটি ঘটেছে তমলুক শহর সংলগ্ন খণ্ডগ্রামে। পুলিশ ঘটনায় অভিযুক্ত জেঠতুতো ভাই জীতেন্দ্র মণ্ডলকে গ্রেফতার করেছে। শনিবার তাঁকে তমলুক আদালতে তোলা হলে বিচারক সোমবার পর্যন্ত জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন।

জমি নিয়ে খুড়তুতো এবং জেঠতুতো ভাইয়ের বিবাদ দীর্ঘদিনের। খুড়তুতো ভাই সুদীপ সেনাবাহিনীতে কর্মরত। এই মুহূর্তে তাঁর পোস্টিং জম্মু-কাশ্মীরের পুঞ্চে সেক্টরে। কিন্তু তাঁর স্ত্রী উত্তরা থাকেন খণ্ডগ্রামে। অন্যদিকে, জীতেন্দ্র একটি বেসরকারি ব্যাঙ্কের এটিএমের নিরাপত্তাকর্মী। সুদীপ এবং জীতেন্দ্রর বাড়ি পাশাপাশি। পারিবারিক জমি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে, শুক্রবার বিকেল থেকে দফায় দফায় দু’পরিবারের মধ্যে বচসা হচ্ছিল। হঠাৎই মদ্যপ অবস্থায় বছর পঁয়ত্রিশের জীতেন্দ্র তাঁর ‘সার্ভিস’ বন্দুক থেকে বাড়ির ভিতরে থাকা উত্তরাকে লক্ষ্য করে পর পর দু’টি গুলি চালান বলে অভিযোগ। গুলিটি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে বাড়ির পাশে একটি গাছে গিয়ে লাগে।

ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা ছড়ায়। স্থানীয় বাসিন্দারা ঘটনাস্থলে পৌঁছে জিতেন্দ্রকে আটক করেন। তমলুক থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে জীতেন্দ্রকে গ্রেফতার করে। তাঁর কাছ থেকে একটি বন্দুক এবং ২৩ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে খবর, জীতেন্দ্রর কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া বন্দুকটি লাইসেন্সপ্রাপ্ত। তবে যে ভাবে সেটি থেকে গুলি করা হয়েছে, তা নিয়ম বিরুদ্ধ। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, জমি নিয়ে বিবাদে দুই পরিবারের মধ্যে বচসা নতুন কোনও বিষয় নয়। তবে ভাইয়ের স্ত্রী’কে লক্ষ্য করে জীতেন্দ্রর গুলি চালানোর ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে। যদিও জীতেন্দ্রর দাবি, তিনি নির্দোষ! বন্দুকটি পরিষ্কার করার সময় হঠাৎই গুলি
ছিটকে গিয়েছিল।