প্রায় ৬০টি গাড়ি বোঝাই করে বুধবার বহরমপুরে তৃণমূলের জেলা সভাপতি মান্নান হোসের বাড়িতে এসে কংগ্রেসের বহু কর্মী-সমর্থক তৃণমূলে যোগ দিলেন।

মান্নানের দাবি, এ দিনের দলত্যাগীদের মধ্যে রানিনগর ১ পঞ্চায়েত সমিতির কংগ্রেসের কয়েক জন সদস্য এবং মুর্শিদাবাদ-জিয়াগঞ্জ পঞ্চায়েত সমিতি এলাকার প্রসাদপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান ও সদস্যরাও রয়েছেন।

মুর্শিদাবাদ জেলা কংগ্রেসের মুখপাত্র অশোক দাস বলেন, ‘‘কুমির ছানার মতো একই লোকজনকে বার বার দেখিয়ে দলবদলের ঘটনাকে তৃণমূল এ জেলায় প্রাত্যহিক উৎসবে পরিণত করেছে।’’

মান্নানের দাবি, কয়েক মাসের দলবদলে তৃণমূলের দখলে এসেছে ৮২টি গ্রাম পঞ্চায়েত ও ৫টি পঞ্চায়েত সমিতি। মাস তিনেকের মধ্যে সংখ্যাটি আরও বাড়বে।

সেই প্রসঙ্গে অশোকবাবুর কটাক্ষ, ‘‘দিবাস্বপ্নেই যখন ৮২টি গ্রাম পঞ্চায়েত দখল করেছেন তাঁরা, তখন এ জেলার সব ক’টি পঞ্চায়েত দখল করতে বাধা কোথায়? সেটিই তাঁর করুন!’’