• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

সাংসদের বিরুদ্ধে থানায় চালকল মালিক

BJP MP
বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকার। ছবি: সংগৃহীত।

ভাল চালের সঙ্গে খারাপ চাল মেশানো হচ্ছিল এই অভিযোগ তুলে এক চালকলের সামনে বিক্ষোভ দেখালেন বেশ কিছু লোকজন। ঘটনাস্থলে বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকারকেও দেখা যায়। শুক্রবার রানাঘাটের হবিবপুরের ঘটনা।

অন্য দিকে, ওই চালকলের মালিক চালকলের সামনে লকডাউন ভেঙে দু-আড়াইশো লোক নিয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অভিযোগ এনেছেন বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকারের বিরুদ্ধে। তাঁর দাবি, মিথ্যে অভিযোগ এনে সাংসদ তাঁর কারখানার সামনে লোকজন নিয়ে এসে ঝামেলা বাঁধানোর চেষ্টা করছিলেন। যদিও সাংসদ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

রানাঘাট পুলিশ জেলার সুপার ভিএসআর অনন্তনাগ বলেন, “ওই চালকলের সামনে হইচই হচ্ছিল। পরে তা মিটে যায়। কারখানার মালিক চালকলের সামনে লকডাউন ভেঙে দু-আড়াইশো লোক নিয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অভিযোগ এনেছেন সাংসদ জগন্নাথ সরকারের বিরুদ্ধে। আইন অনুযায়ী পদক্ষেপ করা হবে।” 

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, শুক্রবার সকালে রানাঘাটের হবিবপুরে ওই চালকলে চাল আসে। সেখানে ভাল চালের সঙ্গে খারাপ চাল মেশানো হচ্ছিল এই অভিযোগ তুলে বেশ কিছু লোকজন চালকলের সামনে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। ঘটনাস্থলে বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকারকেও দেখা যায়।

চালকলের মালিক কৃষ্ণ সাউয়ের দাবি, চালের জোগান দিতে প্রশাসনের তরফে তাঁকে বলা হয়। তাঁর কাছে পর্যাপ্ত চাল না-থাকায় বর্ধমান থেকে চাল নিয়ে আসেন। তার রসিদও তাঁর কছে রয়েছে। তিনি বলেন, ‘‘ভাল-খারাপ চাল মেশোনার অভিযোগ মিথ্যে। আমি এ সব করি না।” তিনি আরও বলেন, “সাংসদ দু’শো-আড়াইশো লোক নিয়ে কারখানার সামনে বিশৃঙ্খলা করেছিলেন। তা পুলিশকে জানিয়েছি।”        

অভিযোগ অস্বীকার করে বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকার বলেন, “মিথ্যা অভিযোগ করা হচ্ছে। আমি একা সেখানে গিয়েছিলাম। আমরা সঙ্গে মাত্র দু’জন নিরাপত্তা রক্ষী ছিলেন। যাঁরা আগে থেকে সেখানে ছিলেন, তাঁরা স্থানীয় বা মালিকের লোকজন হতে পারেন।’’ তিনি বলেন, “এটা সরকারি চাল। এই চাল রাজ্য সরকারকে দেওয়া হয়েছে। সেই চাল ওই চালকলে ‘পাইলিং’ করা হয়েছে। ভাল চালের সঙ্গে খারাপ চাল মেশানো হচ্ছিল।”

 রানাঘাট ১ বিডিও সঞ্জীব সরকার বলেন, “চাল পর্যাপ্ত না-থাকায় ওই চাকলের মালিক বর্ধমান থেকে সেই চাল নিয়ে আসছিলেন। তার কাগজপত্র রয়েছে।”

নদিয়া রাইস মিল অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক মহাদেব সাহা বলেন, “আমাদের সদস্য কৃষ্ণ সাউ কোনও অন্যায় করেননি। তিনি সরকারি নিয়ম মেনে সব কিছু করেছেন। তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে এ  সব করা হয়েছে।” 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন