পাঁচ দিন নিখোঁজ থাকার পর রবিবার সন্ধ্যায় জলঙ্গি নদী থেকে এক যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার হয়েছে। আর সোমবার ওই যুবকের পরিবার তাঁর তিন বন্ধুর বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ তুলল।

মৃতের বাবা হৃদয়ানন্দ সিংহ কোতোয়ালি থানায় তিন জনের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ দায়ের করেছেন। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃতের নাম সত্যজিৎ সিংহ (২৭)। তাঁর বাড়ি কৃষ্ণনগরের নগেন্দ্রনগরে। এ দিন সত্যজিতের দেহ ময়না তদন্তের জন্য শক্তিনগরে জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে দেহটি কলকাতায় রেফার করা হয়।

সত্যজিৎ শিলংয়ে একটি গির্জায় কেয়ার টেকার হিসেবে কাজ করতেন। এ বছর কালীপুজোর সময় তিনি বাড়ি ফেরেন। কালীপুজোর কিছু দিন পর মাকে সঙ্গে নিয়ে বিহারের রোহোতাসে দিদার বাড়িতে যান। গত সপ্তাহেই বাড়ি ফেরেন। মৃতের দিদি রীতা সিংহ চক্রবর্তীর দাবি, গত ২৯ মার্চ রাত ৯টা নাগাদ ভাইকে তার তিন বন্ধু ডেকে নিয়ে যায়। নগেন্দ্রনগরের একটি খেলার মাঠে তাঁরা বসে গল্প করছিল। রীতা বলেন, ‘‘রাত ১১টা নাগাদ কাকা ওঁদের বাড়ি পাঠিয়ে দেয়। কিন্তু বাড়িমুখো হয়নি ও।’’ রীতার কথায়, ‘‘আমরা জানতে পেরেছি, রাত ১২টা পর্যন্ত ভাইকে ওই তিন জনের সঙ্গে দেখা গিয়েছে। সোমবার প্রথমে ধুবুলিয়া ও কোতোয়ালি থানা অভিযোগ নিতে চায়নি। এ দিন দুপুরে কোতোয়ালি থানায় বাবা অভিযোগ করেছেন। কিন্তু পুলিশ অভিযোগ নিলেও তার রিসিভ কপি দেয়নি।’’