পঞ্চায়েতে প্রচারে শাসক দলের হাতিয়ার সাংসদের ‘কৃতিত্ব’ই।

দক্ষিণ দিনাজপুরে সাংসদ কোটার বরাদ্দ পুরো টাকা খরচ করায় বালুরঘাটের তৃণমূল সাংসদ অর্পিতা ঘোষের কৃতিত্বকেই প্রচারে তুলে ধরতে চায় তৃণমূল। সম্প্রতি তহবিলের বরাদ্দ সম্পূর্ণ টাকা খরচ করে রাজ্যের এই কৃতিত্ব অর্জন করেছেন অর্পিতা। গত চার বছরে সাংসদ কোটার মোট ২০ কোটি টাকা তো বটেই, বাম জমানায় সাংসদ কোটায় পড়ে থাকা ২ কোটি টাকা মোট ২২ কোটি টাকাও তিনি নানা কাজে খরচ করেছেন। অর্পিতাদেবীর সাংসদ এলাকাভুক্ত হিলি থেকে হরিরামপুর এবং কুশমন্ডি থেকে ইটাহার সমস্ত ব্লকেই ঢালাই রাস্তা, পানীয় জল, আলো, নিকাশি ও উন্নত সাফাই ব্যবস্থা গড়ে তোলার কাজ প্রায় সম্পূর্ণ হয়েছে। গ্রামস্তরে ওই উন্নয়ন প্রকল্পকে তুলে ধরেই আসন্ন পঞ্চায়েত ভোটের প্রচারের প্রস্তুতি নিচ্ছে শাসক দল।

তৃণমূল সূত্রে খবর, গত চার বছরে রাজ্যের অন্য দলের সাংসদ তো বটেই, নিজের দলের সাংসদদেরও টেক্কা দিয়ে বরাদ্দ টাকা খরচে অর্পিতার রাজ্যে এখনও পর্যন্ত এক নম্বরে উঠে এসেছেন। তবে এর জন্য প্রশাসনের আধিকারিক, বিডিও এবং সংশ্লিষ্ট কাজের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মীদের কৃতিত্বকেই তুলে ধরেছেন অর্পিতা। তিনি বলেন, ‘‘বিডিও-সহ উন্নয়ন প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত কর্মীদের তৎপরতা, সময়ে কাজ শেষ করে ইউসি জমা দেওয়ায় সাফল্য মিলেছে। আগামী আর্থিক বছরে সাংসদ কোটার টাকা বরাদ্দ হয়ে আসার আগেই কী কী প্রকল্প হবে, ইতিমধ্যে তার খসড়া পরিকল্পনা আমরা করে ফেলেছি।’’ জেলা প্রশাসন সূত্রের খবর, ইতিমধ্যে সাংসদ কোটার টাকায় তৈরি অধিকাংশ প্রকল্পের সদ্ব্যবহারপত্র (ইউসি) দিল্লিতে জমা পড়েছে। চলতি ৩১ মার্চের মধ্যে বাকি প্রকল্পের সদব্যবহারপত্রও পেশ হয়ে যাবে।

প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, দক্ষিণ দিনাজপুরে সাংসদ কোটার টাকা খরচের ক্ষেত্রে গ্রামাঞ্চলের রাস্তা, আলো, নিকাশির মত ছোট অথচ প্রয়োজনীয় প্রকল্পকে গুরুত্ব দিয়েছেন অর্পিতা। গ্রামীণ এলাকায় রাস্তা, পানীয় জল, পথবাতি, ছোট সাংস্কৃতিক মঞ্চ তৈরিতে টাকা খরচ করা হয়েছে। অধিকাংশ প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ায় আসন্ন পঞ্চায়েত ভোটের প্রচারে বাড়তি সুবিধা হবে, তা স্বীকার করছেন তৃণমূল নেতারাও। তৃণমূল কোর কমিটির নেতা তথা প্রতিমন্ত্রী বাচ্চু হাঁসদা বলেন, ‘‘প্রতিটি ব্লকের রাস্তার মোড়ে হাইমাস্ট আলো থেকে পরিস্রুত শীতল পানীয় জলের যন্ত্র, রাস্তা ও নিকাশির মত ছোট অথচ অতি প্রয়োজনীয় কাজগুলিকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছিল। সময়ে কাজ গুলি শেষ হয়েছে। প্রতিনিয়ত প্রকল্পগুলি রূপায়ণে সমস্যা দূর করতে সমন্বয় করে সাংসদ লেগে থাকতেন।’’