• পার্থ চক্রবর্তী
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

আলিপুরদুয়ারে কি ত্রিমুখী লড়াই

Panchayat Poll
উচ্ছ্বাস: পঞ্চায়েত ভোটে জয়ের আনন্দে আবির খেলছেন তৃণমূল কর্মী- সমর্থকেরা। ময়নাগুড়িতে। রবিবার। ছবি: দীপঙ্কর ঘটক

ফের ভোটের ভাবনা শুরু আলিপুরদুয়ারে৷ মাস কয়েক পরই আলিপুরদুয়ার পুরসভার নির্বাচন৷ পঞ্চায়েত নির্বাচন শেষ হতেই পুর নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরুরে দিয়েছে জেলার প্রায় সব রাজনৈতিক দল৷

২০১৩ সালে আলিপুরদুয়ার পুরসভার শেষ নির্বাচনে লড়াইটা ছিল মূলত তৃণমূল, বামফ্রন্ট ও কংগ্রেসের মধ্যে৷ রাজ্যে পালাবদল সত্ত্বেও সেবার পুরসভায় এগিয়ে ছিল বামেরা৷ কুড়ি ওয়ার্ডের মধ্যে আটটি জিতেছিল তারা৷ বাকি বারোটি ওয়ার্ডের ছ’টিতে তৃণমূল ও ছ’টিতে কংগ্রেস প্রার্থীরা জয়লাভ করে৷ বামফ্রন্ট পুর বোর্ড গঠন করে৷ চেয়ারম্যান হন অনিন্দ্য ভৌমিক৷ কিন্তু বছরখানেক পর কংগ্রেস কাউন্সিররা তৃণমূলে যোগ দেন৷ ফলে পুরবোর্ড হাতছাড়া হয় বামেদের৷ নতুন চেয়ারম্যান হন তৃণমূলের আশিস দত্ত৷ এখনও তিনিই সেই পদ সামলাচ্ছেন৷

সব দলের নেতারাই বলছেন, এ বারও আলিপুরদুয়ার পুর নির্বাচনে ত্রিমুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা৷ কিন্তু এ বার আলিপুরদুয়ারের রাজনৈতিক পরিস্থিতি ২০১৩ সালের থেকে অনেকটাই আলাদা৷ গত নির্বাচনে কুড়িটি ওয়ার্ডের মধ্যে মাত্র পাঁচটিতে প্রার্থী দাঁড় করাতে পেরেছিল বিজেপি৷ তাদের কেউই জিততে পারেননি৷ কিন্তু এ বার কুড়িটি আসনেই প্রার্থী দাঁড় করানোর প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে তারা৷ বিজেপির জেলা সভাপতি গঙ্গাপ্রসাদ শর্মা বলেন, ‘‘গোটা জেলার সঙ্গে আলিপুরদুয়ার শহরে আমাদের শক্তি বেড়েছে৷ তাছাড়া পঞ্চায়েত নির্বাচনে সাফল্য কর্মী-সমর্থকদের মনোবল বাড়িয়ে দিয়েছে৷ এ বার সব ওয়ার্ডেই আমাদের প্রার্থীরা তৃণমূলকে চ্যালেঞ্জ দেবে৷’’

আলিপুরদুয়ারের তৃণমূল বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তী অবশ্য বিজেপিকে গুরুত্ব দিতে নারাজ। তাঁর কথায়, ‘‘শহরে বিজেপির কোনও অস্তিত্ব নেই৷ ফলে এ বারও আমাদের লড়াই বামেদের সঙ্গেই হবে৷ তবে আমরা পুরসভা বিরোধীশূন্য করবই৷’’ সৌরভের দাবি, গোটা আলিপুরদুয়ারের সঙ্গে পুর এলাকাতেও ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে৷ তাঁর কথায়, ‘‘প্রতিটি ওয়ার্ডের নেতা-কর্মীদের বলেছি, এখন থেকেই বাড়ি বাড়ি গিয়ে উন্নয়নের কথা মানুষের কাছে তুলে ধরতে৷’’

দল সূত্রে খবর, জেলায় গত কয়েক বছরে বিজেপির শক্তি বাড়ার সঙ্গে  শক্তি কমেছে বাম ও কংগ্রেসের৷ কিন্তু গতবার বোর্ড গঠন করায় এ বারও তারা আলিপুরদুয়ার পুর নির্বাচনে ভাল ফল করতে মরিয়া৷  পুরসভার বিরোধী দলনেতা তথা সিপিএম কাউন্সিলর অনিন্দ্য ভৌমিক বলেন, ‘‘বাম গণতান্ত্রিক জোট গড়েই এবার নির্বাচনে লড়াই করার কথা ভাবা হচ্ছে৷ প্রাথমিক প্রস্তুতিও শুরু হয়ে গিয়েছে৷’’ জেলা কংগ্রেসের সভাপতি বিশ্বরঞ্জন সরকারও বলেন, ‘‘এটা বাস্তব এ বার আমাদের শক্তি খানিকটা কমেছে৷ কিন্তু পুর নির্বাচনে আমরাও লড়াই দেব৷’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন