তৃণমূল ছেড়ে কোনও কাউন্সিলর দলে এলে আগামী পুরসভা নির্বাচনে তাকে টিকিট দেবে না বিজেপি। সম্প্রতি এমনই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিজেপির জেলা শীর্ষ নেতৃত্ব। বিজেপি নেতাদের দাবি, ইতিমধ্যেই আলিপুরদুয়ার পুরসভার বেশ কয়েকজন তৃণমূলের বিদায়ী কাউন্সিলর বিজেপিতে যোগ দিতে দলের রাজ্য নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেছেন। তবে, বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব তাঁদের দলের মণ্ডল কিংবা জেলা নেতৃত্বের সঙ্গে আলোচনায় বসার পরামর্শ দিয়েছেন। 

বিজেপির জেলা সভাপতি গঙ্গাপ্রসাদ শর্মা বলেন, “তৃণমূলের কোনও বিদায়ী কাউন্সিলর বিজেপিতে আসতেই পারেন। কিন্তু, পুরসভা নির্বাচনে তাঁদের টিকিট দেওয়া হবে না।”

গত অক্টোবর মাসেই আলিপুরদুয়ার পুরসভার তৃণমূল পরিচালিত বোর্ডের মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছে। তার পর থেকে প্রশাসক হিসাবে পুরসভার দায়িত্ব সামলাচ্ছেন মহকুমাশাসক কৃষ্ণাভ ঘোষ। জেলার রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের ধারণা, যে কোনও মুহূর্তেই আলিপুরদুয়ার পুরসভায় নির্বাচন হতে পারে। কিন্তু তার আগে সদ্য শেষ হওয়া এ বারের লোকসভা নির্বাচনে আলিপুরদুয়ার কেন্দ্রে তৃণমূলকে বড় ব্যবধানে পরাজিত করেছে বিজেপি। যার প্রভাব পড়েছে আলিপুরদুয়ার পুর এলাকাতেও৷ ভোট গণনার পরে দেখা গিয়েছে আলিপুরদুয়ার পুরসভার কুড়িটি ওয়ার্ডের সব ক’টিতেই এগিয়ে বিজেপি৷

বিজেপি নেতাদের দাবি, লোকসভা নির্বাচনে দলের এই ভরাডুবির পর ইতিমধ্যেই তৃণমূলের কয়েকজন বিদায়ী কাউন্সিলর তাঁদের দলের দিকে পা বাড়িয়েছেন৷ যাঁদের দু’একজন কলকাতায় গিয়ে দলের রাজ্য নেতৃত্বের সঙ্গে দেখাও করেছেন বলে দাবি বিজেপি নেতাদের৷ দলের নেতাদের কথায়, রাজ্য নেতৃত্ব তৃণমূলের ওই বিদায়ী কাউন্সিলরদের জেলা বা মণ্ডল নেতৃত্বের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলেছেন৷ বিজেপির জেলা সভাপতি গঙ্গাপ্রসাদ শর্মার বক্তব্য, “আলিপুরদুয়ার পুরসভার পরবর্তী নির্বাচনে আমরা কুড়িটি ওয়ার্ডেই নতুন মুখকে টিকিট দেব৷ এ ব্যাপারে ইতিমধ্যেই দলের সিদ্ধান্ত হয়ে গিয়েছে৷” দলের শহর মণ্ডল সভাপতি অমিতাভ গঙ্গোপাধ্যায় জানান, “প্রার্থী হিসাবে প্রতিটি ওয়ার্ডে নতুন মুখ বাছার কাজও আমাদের শুরু হয়ে গিয়েছে৷”

বিজেপি নেতাদের একাংশের কথায়, সাধারণ মানুষ তৃণমূল নেতা থেকে শুরু করে কাউন্সিলরদের উপর বিরক্ত৷ সেজন্যই আগামী পুর নির্বাচনে তাদের টিকিট না দেওয়ার সিদ্ধান্ত৷ কিন্তু বিজেপি সূত্রে এ-ও খবর, তৃণমূলের কোনও বিদায়ী কাউন্সিলরকে টিকিট দিলে দলের অন্দরে ব্যাপক গোলমাল দানা বাঁধতে পারে৷ তাই নেতাদের এই সিদ্ধান্ত৷ যদিও তা মানেননি গঙ্গাপ্রসাদ৷ তাঁর কথায়, “তৃণমূলের কোনও বিদায়ী কাউন্সিলর এলে তাদের অভিজ্ঞতাকে আমরা সংগঠনের কাজে ব্যবহার করব৷”

তবে তৃণমূলের আলিপুরদুয়ার টাউন ব্লক সভাপতি দীপ্ত চট্টোপাধ্যায় বলেন, “আমাদের দলের কোনও বিদায়ী কাউন্সিলর বিজেপি শিবিরে যোগযোগ করেননি৷ বিজেপি নেতারা মিথ্যা কথা বলছেন৷”