রং-বেরঙের বেলুনে সাজবে বুথ। ছোটদের জন্য থাকবে চকোলেট। আর নতুন ভোটারদের জন্য থাকবে ‘সেলফি জ়োন’। হবিবপুর বিধানসভার উপনির্বাচনেও করা হচ্ছে এমনই মডেল বুথ। আর মডেল বুথগুলি পরিচালনা করবেন মহিলারা। মডেল বুথগুলির পাশাপাশি বিধানসভার প্রতিটি বুথেই ভোটার ও ভোটকর্মীদের সুবিধার্থে পানীয় জলের ব্যবস্থা করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রশাসনের কর্তারা। মালদহের অতিরিক্ত জেলাশাসক অশোককুমার মোদক বলেন, “লোকসভার মতো হবিবপুর বিধানসভার উপনির্বাচনেও মডেল বুথ করা হবে। আমাদের প্রস্তুতি শুরু হয়ে গিয়েছে।”

আগামী, ১৯ মে হবিবপুর বিধানসভার উপনির্বাচন। ২৩ এপ্রিল মালদহের দু’টি লোকসভা কেন্দ্রের নির্বাচন হয়েছে। লোকসভা নির্বাচন শেষ হতে না হতেই শুরু হয়ে যায় উপনির্বাচনের তোড়জোড়। হবিবপুর বিধানসভায় মোট ২৪৭টি বুথ রয়েছে। মোট ভোটার রয়েছেন ২ লক্ষ ৪০ হাজার ৩৫১জন। প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, হবিবপুর বিধানসভার উপনির্বাচনে ১১ কোম্পানির কেন্দ্রীয় বাহিনী থাকবে। প্রতিটি বুথেই বাহিনী থাকবে বলে দাবি প্রশাসনের। ভোটারদের উৎসাহ বাড়াতে হবিবপুর বিধানসভার উপনির্বাচনেও করা হচ্ছে মডেল বুথ। ওই বুথগুলি হবে মহিলা পরিচালিত। 

প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, পাঁচটি মডেল বুথ করা হবে। হবিবপুর, কালীতলা, নিত্যানন্দপুর স্কুলে মডেল বুথ থাকবে। রোদের মধ্যে যাতে ভোটারদের লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে ভোট দিতে না হয় তার জন্য শেড তৈরি করা হবে। অনুষ্ঠান বাড়ির মতো সেই বুথগুলি সাজানো হবে বলে দাবি প্রশাসনের কর্তাদের। নানা রঙের বেলুন দিয়ে বুথ সাজবে। এ ছাড়া মহিলা ভোটারদের সঙ্গে বুথে আসতে দেখা যায় শিশুদের। সেই শিশুদের চকোলেট এবং ছোট ছোট খেলনাও দেওয়া হবে। একই সঙ্গে বুথগুলিতে থাকবে ‘সেলফি জ়োন’-ও। বিশেষ করে নতুন ভোটারদের জন্যই এই নতুন ভাবনা।

দিল্লি দখলের লড়াইলোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

মডেল বুথগুলির পাশাপাশি হবিবপুর বিধানসভার প্রতিটি বুথেই পানীয় জলের জলের ব্যবস্থা করা হবে। কারণ সপ্তাহ খানেক ধরে টানা গরম চলছে মালদহে। দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি ছাড়িয়েছে। গরমে দুপুরের পরে রাস্তাঘাট সুনসান। গলা শুকিয়ে যাচ্ছে। তাই ভোটার এবং ভোট কর্মীদের সুবিধার্থে বুথে বুথে পানীয় জলের ব্যবস্থা থাকবে। এমনকি, বহু বুথেই ত্রিপল দিয়ে শেডেরও ব্যবস্থা করা হবে। হবিবপুরের বিডিও শুভজিৎ জানা বলেন, “গরম থেকে বাঁচতে  পানীয় জলের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।  ভোটারদের সুবিধার বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে।”