দার্জিলিঙের টাইগার হিলে গাড়ির কুপন সংক্রান্ত বিষয়ে পুলিশের সঙ্গে পর্যটন, পরিবহণ ব্যবসায়ী সংগঠনগুলির বৈঠকে কোনও সমাধান সূত্র বেরল না। শনিবার দুপুরে দার্জিলিঙের ডালি পুলিশ লাইনে বৈঠক হয়। জেলা পুলিশের অফিসারেরা ছাড়াও পরিবহণ দফতর, পুরসভার আধিকারিকেরা উপস্থিত ছিলেন। ১ সেপ্টেম্বর থেকে টাইগার হিলে যাওয়ার জন্য দিনপ্রতি ৩০০টি কুপন দেওয়ার নিয়ম চালু করেছে পুলিশ। তা নিয়ে ব্যবসায়ীদের সম্মিলিত মঞ্চের তরফে আপত্তি জানানো হয়। গত দু’সপ্তাহ ধরে পর্যটন মন্ত্রী, পুলিশ সুপার এবং জেলাশাসক পর্যায়ে একাধিক বৈঠক হয়েছে। এ দিন নতুন করে বৈঠক ডাকে পুলিশও।

সরকারি সূত্রের খবর, দার্জিলিং পুলিশের তরফে প্রথমেই এ দিন তিনশোর বদলে ৬০০ গাড়িকে কুপন দেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়। বৈঠকে উপস্থিত দার্জিলিং অ্যাসোসিয়েশন অব ট্রাভেল এজেন্টদের তরফে পাল্টা প্রস্তাব দেওয়া হয় ২৭ সেপ্টেম্বর অবধি কোনও সংখ্যা না বেঁধে পরীক্ষামূলকভাবে সব গাড়িকে ছাড় দেওয়ার জন্য। পুলিশ অবশ্য তাতে রাজি হয়নি। সংগঠনের সম্পাদক প্রদীপ লামা জানান, ২৭ সেপ্টেম্বর বিশ্ব পর্যটন দিবস। তাই সেদিন অবধি দেখে বাকি সিদ্ধান্ত পরে নেওয়ার কথা বলা হয়। পুলিশের প্রস্তাবে রাজি হয়নি ওই সংগঠন। প্রদীপ জানান, টাইগার হিলের সিঞ্চল মন্দিরে প্রতিদিন পুজোর জন্য অনেকে যান। কুপনের নিয়মে তা বন্ধ হতে বসেছে। হিমালয়ান হসপিটালিটি অ্যান্ড ট্যুরিজম ডেভেলপমেন্ট নেটওয়ার্কের সাধারণ সম্পাদক সম্রাট সান্যাল জানান, আগামী সপ্তাহে সব সংগঠন মিলে বৈঠক হবে।

জেলা পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, কুপনের সংখ্যা দ্বিগুণ করা হয়েছে। তাতেও সংগঠনগুলি রাজি না হলে কিছু করার নেই।