টানা বৃষ্টিতে মাটি-পাথর ধসে পাহাড়ের ঢালে থাকা বসতি এলাকায় পড়ায় এক শিশু সহ একই পরিবারের ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। জখম হয়েছেন ৩ জন।

দার্জিলিং জেলা সদর থেকে প্রায় ৭০ কিলোমিটার দূরে লোধামা থানার ফেনছায়টাড় এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। ধসে ক্ষতি হয়েছে তিনটি বাড়ির। আহতদের স্থানীয় লোধামা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। তাঁদের অবস্থা স্থিতিশীল বলে হাসপাতাল সূত্রে জানানো হয়েছে। দার্জিলিঙের জেলাশাসক অনুরাগ শ্রীবাস্তব জানান, মৃতের পরিবার ও আহতদের সব রকম সহায়তা করছে ব্লক প্রশাসন।

তবে বৃষ্টি চলতে থাকায় পাহাড়ের বেশ কিছু এলাকায় ছোটবড় ধসের ঘটনা ঘটছে বলে জেলাশাসক জানান। যেমন, সকালেই কালিম্পঙের কাছে ২৯ মাইল এলাকায় ধস নামায় জাতীয় সড়ক বন্ধ হয়ে যায়। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জরুরি ভিত্তিতে ধস সরিয়ে নিয়ন্ত্রিত ভাবে যান চলাচল শুরু করানো হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, লোধামায় মৃতদের নাম মন লিম্বু (২৮), তাঁর স্ত্রী প্রেমকিত (২৪) ও ছেলে আনিস (৮)। পুলিশের সন্দেহ, বৃষ্টির ভোরে সকলেই ঘুমোচ্ছিলেন। ঘুমের মধ্যেই ধসের নীচে চাপা পড়ে যান তাঁরা। ওই এলাকায় মাত্র দু’টিই বাড়ি। ঘটনাস্থল থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে রয়েছে আরও কয়েকটি বাড়ি। তারা টের পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধারের কাজে হাত লাগান। খবর পেয়ে পুলিশ-প্রশাসনের লোকজনও পৌঁছে যায়।

স্থানীয় বাসিন্দারা পুলিশকে জানিয়েছেন, ওই দিন ভোরে তাড়াতাড়ি ঘুম ভেঙে যায় দিনমজুর মনের বাবা হরকাবাহাদুরের। তিনি ঘর থেকে বেরিয়ে চা খেতে এলাকার একটি দোকানে যান। সেই সময়ে আচমকা ধস নামলে একটি ঘর চাপা পড়ে যায়। সেখানেই ছেলেকে নিয়ে ঘুমোচ্ছিলেন মন, তাঁর স্ত্রী। ঘুমের ঘোরেই তারা মাটি-পাথরের নীচে চাপা পড়ে যান। প্রথমে দম্পতির দেহ উদ্ধার হয়। পরে শিশুটির দেহ মেলে।