হাতে আর দু’সপ্তাহ সময়। কালিয়াগঞ্জ  বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনের প্রচারে একাধিক নেতাকে দায়িত্ব দিল তৃণমূল। কোচবিহার থেকে রাজবংশী সম্প্রদায়ের নেতা পার্থপ্রতিম রায়কেও তাই নামানো হবে প্রচারে। 
আজ শনিবার, অযোধ্যা মামলায় সুপ্রিম কোর্টের রায় দেওয়ার কথা। সেই দিকেও নজর রেখেছে তৃণমূল ও বিজেপি দুই পক্ষই।

গত লোকসভা নির্বাচনে কালিয়াগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূলের থেকে প্রায় ৫৭ হাজার ভোটে এগিয়ে ছিল বিজেপি। এই কেন্দ্রে ভোটারের সংখ্যা ২ লক্ষ ৬৯ হাজার ৬৬৯ জন। তার মধ্যে ৬২ শতাংশ ভোটার রাজবংশী সম্প্রদায়ের বাসিন্দা বলে প্রশাসনিক সূত্রের খবর। এর মধ্যে তৃণমূল সূত্রেই খবর, গত লোকসভা নির্বাচনে এই কেন্দ্রের রাজবংশী সম্প্রদায়ের বেশিরভাগ ভোটার বিজেপিকেই ভোট দিয়েছেন বলেই জানা গিেছে টিম পিকে-র সমীক্ষায়। তার পরেই দলনেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে উপনির্বাচনের মুখে এই কেন্দ্রের রাজবংশী সম্প্রদায়ের ভোটারদের ভোট টানতে তৃণমূলের নেতানেত্রীরা ঝাঁপিয়ে পড়েছেন।

যে কারণে কোচবিহার প্রাক্তন সাংসদ পার্থপ্রতিমবাবুকে আনা হবে এই কেন্দ্রের প্রচারে। পার্থপ্রতিমকে এ বার লোকসভায় কোচবিহার অাসন থেকে প্রার্থী করেনি তৃণমূল। তবে তাঁকে সম্প্রতি ওই জেলার কার্যকরী সভাপতি করা হয়েছে। পার্থবাবু ১৪ নভেম্বর কালিয়াগঞ্জে আসবেন।

রাজবংশী সম্প্রদায়ের মানুষের বসবাস বেশি, এমন এলাকাগুলিতে অবশ্য এখন থেকেই জোরদারপ্রচার শুরু করেছে তৃণমূল। কলকাতায় দলীয় বৈঠক থেকে ফিরেই শুক্রবার সকালে রাজ্যের মন্ত্রী গোলাম রব্বানি কালিয়াগঞ্জে যান। এ দিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত তিনি কালিয়াগঞ্জের মালগাঁও ও বরুণা গ্রাম পঞ্চায়েতের রাজবংশী অধ্যুষিত বিভিন্ন এলাকায় কর্মিসভা ও পথসভা করেছেন। পাশাপাশি, তৃণমূলের রাজ্য সম্পাদক অসীম ঘোষ ও ওই বিধানসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী তপন দেবসিংহ এ দিন সকালে কালিয়াগঞ্জ রেলস্টেশনে গিয়ে বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জনসংযোগ তৈরির চেষ্টা করেন। তপনবাবুও রাজবংশী সম্প্রদায়ের। 

কালিয়াগঞ্জের বিভিন্ন এলাকার রাজবংশী সম্প্রদায়ের বাসিন্দারা বিভিন্ন কাজে যোগ দেওয়ার জন্য ট্রেনে চেপে বাঙালবাড়ি ও রায়গঞ্জে যান। মূলত, তাঁদের সঙ্গে কথা বলার জন্যই অসীম ও তপন স্টেশনে যাচ্ছেন বলে জানা গিয়েছে। এ দিন বিকেলে অসীম ও তপন কালিয়াগঞ্জের বীরঘই গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকাতেও একাধিক পথসভা ও কর্মিসভায়ও যোগ দেন। প্রতিটি সভাতেই তৃণমূলের স্থানীয় নেতৃত্ব রাজবংশী সম্প্রদায়ের বাসিন্দাদের শামিল করেন। 

তৃণমূল নেত্রীর নির্দেশে নির্বাচনী প্রচার চালাতে আগামী ১৩ নভেম্বর কালিয়াগঞ্জে যাবেন তৃণমূলের জেলা পর্যবেক্ষক তথা রাজ্যের মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। এর পর ১৫ নভেম্বর নির্বাচনী প্রচারের জন্য কালিয়াগঞ্জে পৌঁছবেন দক্ষিণ দিনাজপুরের জেলা তৃণমূল সভানেত্রী অর্পিতা ঘোষ ও মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়।

অসীমের দাবি, পার্থপ্রতিম, শুভেন্দু, অর্পিতা ও রাজীব কালিয়াগঞ্জে একাধিক কর্মিসভা ও জনসভায় যোগ দেবেন। মূলত, রাজবংশী অধ্যুষিত এলাকাগুলিতেই তাঁরা প্রচারে জোর দেবেন। মন্ত্রী রব্বানির দাবি, ‘‘তফসিলি জাতি, জনজাতি ও রাজবংশী সম্প্রদায়ের বাসিন্দাদের স্বার্থে গত আট বছরে মুখ্যমন্ত্রীর বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্প চালু করেছে। আমরা নির্বাচনী প্রচারে তাঁদের সে কথাই বোঝাচ্ছি।’’