গুলিবিদ্ধ ছাত্র মাজিদের শারীরিক অবস্থার সেরকম কোনও উন্নতি হল না রবিবারও। শনিবার রাতে চিকিৎসকেরা জানান, মাজিদের শরীরে জন্ডিস, ধরা পড়েছে। তার চিকিৎসাও শুরু হয়েছে। জন্ডিসের কারণে দ্রুত শারীরিক উন্নতি ধাক্কা খাবে বলে আশঙ্কা চিকিৎসকদের।

মল বা মূত্রত্যাগের পরিমাণ স্বাভাবিক না হওয়া চিন্তার মূল কারণ বলে জানাচ্ছেন ডাক্তাররা। যতদিন না পর্যন্ত মূত্রত্যাগের মাত্রা স্বাভাবিক হচ্ছে মাজিদকে ভেন্টিলেশন ওয়ার্ড থেকে সরিয়ে সাধারণ ওয়ার্ডে আনা যাচ্ছে না। সে কারণে তাঁর মাথা ও মেরুদন্ডের এমআরআইও করা যাচ্ছে না। ররিবার অল্প মলত্যাগ করলেও মূত্রত্যাগ করেনি মাজিদ। মূত্রত্যাগ স্বাভাবিক নয় সেই কারণেই জন্ডিস হতে পারে বলে মনে করছেন হাসপাতালের চিকিৎসকেরা। সবার আগে জন্ডিস দ্রুত সারিয়ে তোলা জরুরি বলেই মনে করছেন তাঁরা।

রবিবারও সাধারণ কিছু কথাবার্তায় সাড়া দিয়েছেন মাজিদ। রক্ত দেওয়া হয়েছে তাঁর শরীরে। শনিবার বন্ধ থাকার পরে এ দিন রবিবার কিছু সময় ডায়ালিসিসও করা হয়েছে। শারীরিক পরিস্থিতির অবনতি হয়নি ঠিকই। তবে উন্নতিও সেরকম লক্ষ্য করতে পারছেন না ডাক্তাররা। তাই আরও কিছু সময় মাজিদকে নজরদারিতেই রাখতে চাইছেন।

চিকিৎসকদের একটি অংশের ধারণা গুলি লাগার ফলে মাজিদের বেশ কয়েকটি অঙ্গ যেভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল, তা খানিকটা স্বাভাবিক হতেই বেশ কিছুটা সময় লেগে যাবে। তবে তাঁদের আশা, মাজিদের বয়েস কম বলেই চিকিৎসায় এতটা সাড়া দিতে পারছেন তিনি।

১৩ জুলাই কলেজ থেকে বাড়ি ফেরার পথে সংঘর্ষের মাঝে পড়ে মাজিদের পেটে গুলি লাগে। ওই কাণ্ডের পিছনে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। যদিও ওই ঘটনায় এখনও কেউ গ্রেফতার হয়নি।