বাহির জ্বলিতেছিল। এই বার আগুন লাগিল ঘরেও। অমিত শাহের ‘এক রাষ্ট্র এক ভাষা’ বিষয়ক বক্তব্য সরাসরি খারিজ করিয়া কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী বি এস ইয়েদুরাপ্পা জানাইয়াছেন, ভাষার প্রশ্নে কোনও আপস নহে। হিন্দির ‘দাদাগিরি’ বরদাস্ত করা হইবে না বলিয়া হুঁশিয়ারি দিয়াছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সদানন্দ গৌড়াও। অমিত শাহের মন্তব্য লইয়া ইতিপূর্বে ভাষা ও সংস্কৃতির প্রশ্নে বিজেপি-কে কটাক্ষ করিতেছিল দক্ষিণ ভারতের বিরোধী দলগুলি। বোধ করি, শাসককে সেই বাণ বড় বিঁধিয়াছে, অতএব আক্রমণের অভিমুখ সরাসরি নয়াদিল্লির অভিমুখে ঘুরাইয়া দিবার প্রয়াস। অস্বস্তির অপরাপর কারণও বর্তমান। লোকসভা নির্বাচনে তিনশতাধিক আসন পাইলেও কর্নাটক ব্যতীত আর কোনও দক্ষিণী রাজ্যেই আহামরি ফল করিতে পারে নাই বিজেপি। সেই স্থলে হিন্দি চাপাইয়া দিবার ন্যায় সংবেদনশীল বিষয়ে বারংবার আঘাত করিলে রাজনৈতিক ভাবে গৈরিক বাহিনীর যে ক্ষতি হইবে, তাহা মেরামত করা কার্যত অসম্ভব হইয়া পড়িবে। অমিত শাহদের রাজনীতির আদর্শ কঠোর হইতেই পারে, কেহ উহাকে অপরিবর্তনীয়ও ভাবিতে পারেন, কিন্তু জনতার নিকট তাহা স্বতঃসিদ্ধ হইতে যাইবে কেন? অতএব ক্ষোভ, তাহার প্রবল উত্তাপ, এবং দক্ষিণের নেতাদের তর্জন।

যুক্তি ও পাল্টা যুক্তির প্রাথমিক ধাপটি আদর্শনৈতিক। গত পাঁচ বৎসর একশত দিনে প্রমাণিত, দেশকে ‘একসূত্রে’ বাঁধিবার অপেক্ষা কোনও কিছুকেই অধিক গুরুত্ব দেয় না নরেন্দ্র মোদীর সরকার। সমগ্র বিশ্বের নিকট ভারতের যে পরিচিতি তাঁহারা নির্মাণ করিতে চাহেন, তাহাও একপ্রস্তরে তৈয়ারি— যাহাকে বলে ‘মনোলিথিক’। তৎসূত্রেই ‘এক’ ভাষার ধারণা বাধ্যতামূলক। এবং বর্তমান শাসকের গোবলয়কেন্দ্রিক রাজনীতির স্বার্থরক্ষা এবং পুষ্টিদানের দায়ে সেই ভাষা হইয়াছে হিন্দি। প্রতিপ্রশ্নটি এইখানেই উত্থাপিত হয়। অমিত শাহ ‘সর্বাধিক প্রচলিত’ হিন্দি প্রচারের কথা বলিতেছেন। প্রশ্ন হইল, হিন্দিও তো কুড়িরও বেশি উপভাষা লইয়া গঠিত। হিন্দিভাষী বলিতে যে ৪৩ শতাংশ ভারতীয়ের কথা বলা হইতেছে, তাঁহাদের ১৮ শতা‌ংশ প্রকৃতপক্ষে উপভাষাভাষী। উপরন্তু, অবশিষ্ট ভাষাগুলিই বা কী দোষ করিল? যে দেশীয় ভাষার সহিত তামিলনাড়ু বা কেরলের ন্যূনতম সম্পর্ক নাই, তাহাকে সংযোগ-ভাষা হিসাবে মানিয়া লইতে আপত্তি থাকাই স্বাভাবিক। ভাষাতত্ত্বের হিসাব কষিতে বসিলেও অঙ্ক মিলিবে না। ইন্দো-আর্য ভাষাবংশীয় হিন্দি, কিন্তু দ্রাবিড়ীয় ভাষাবংশীদের নিকট প্রবল ভাবেই ভিনদেশি। ইংরেজি যতখানি, ততখানিই।

তর্কের দ্বিতীয় ধাপটি আদ্যন্ত রাজনৈতিক। যাঁহারা বলেন, হিন্দিই কেবল দেশকে একতাবদ্ধ করিতে সক্ষম, বিধাতাপুরুষ তখন বোধহয় অলক্ষ্যে মুচকি হাসেন। কেননা, ওই মন্তব্যের প্রেক্ষিতেই আপন আপন পরিচিতি লইয়া জাগিতে শুরু করে দেশের অহিন্দিভাষী প্রান্তগুলি। ভাগ্যের পরিহাস— একতার ইচ্ছা প্রকাশ করিতেই অনৈক্য জাগিয়া উঠে। ইতিহাস স্মরণ করায়, স্বাধীনতা সংগ্রামের কালে দেশে না ছিল একতার অভাব, না ছিল একতাবদ্ধ করিবার নেতার অভাব— তবু দেশ ত্রিধাবিভক্ত হইয়াছিল। বুঝিয়া লওয়া প্রয়োজন, বলপূর্বক হিন্দি চাপাইতে গেলে কেবল দক্ষিণ ভারত নহে, ধীরে ধীরে পূর্ব, উত্তর, উত্তর-পূর্ব ও পশ্চিম ভারতের অপর ভাষাভাষী, এমনকি হিন্দি বলয়ের উপভাষীদের নিকটও সত্তাপরিচিতি বা আইডেন্টিটির প্রশ্নটি বড় হইয়া উঠিতে পারে। ব্যক্তি ও গোষ্ঠীর বড় আবেগের স্থল ভাষা। উহাকে উগ্র জাতীয়তাবাদের বাহন করিতে গেলে হিতে বিপরীতের আশঙ্কাই অধিক, বিশেষত ভাষার ভিত্তিতে বহুবিভক্ত এই যুক্তরাষ্ট্রীয় দেশে। সুতরাং, দেশকে এক ভাষার বেগে চালিত করিবার নিরীক্ষাটি মারাত্মক। ঘাড় ধরিয়া দেশভক্তি হয় না।