Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২১ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

‘পরিচালকের সঙ্গে নয়, সংসারটা একদম অন্য মানুষের সঙ্গে’

স্বরলিপি ভট্টাচার্য
২৯ মার্চ ২০১৮ ১৩:২৭
দম্পতি। ছবি: টুইটারের সৌজন্যে।

দম্পতি। ছবি: টুইটারের সৌজন্যে।

দার্জিলিং কেমন ঘুরলেন?
শুভশ্রী: দার্জিলিং আর কী ঘুরব। একটা ব্রেক ছিল। নর্মাল ব্রেক।

হনিমুন তো?
শুভশ্রী: ধুর। ওসব কিছু না।

বিয়ের পর জীবন কতটা বদলাল?
শুভশ্রী: বিয়ের পর বদলানোটা এখনও ফিল করছি না। আমার তো সবই এক রকম মনে হচ্ছে। এ বার ছবি নিয়ে কথা বলি প্লিজ…।

Advertisement

নিশ্চয়ই। বিয়ের পর প্রথম রিলিজ ‘চালবাজ’। আলাদা টেনশন হচ্ছে?
শুভশ্রী: বিয়ে নিয়ে প্রশ্নটা থাকবেই, না? হা হা… আসলে এই বিয়ের পর ওয়ার্ডটাই খুব হেভি। এটা শুনলেই সবাই ফট করে টেকেন আ ব্যাক, লাইক ও! বিয়ের পর, ইয়েস। বাট ইটস নর্মাল। আমার কোনও আলাদা ফিলিংসই হচ্ছে না। প্রত্যেকটা ছবি রিলিজের সময় যেমন মনে হয়, এখনও একই রকম মনে হচ্ছে।

‘চালবাজ’ তো কর্মাশিয়াল ছবি।
শুভশ্রী: আমার কাছে ছবির দু’টো ডেফিনেশন। ভাল আর খারাপ। সব ছবিই টাকা কামায়। কমার্শিয়াল হওয়ার জন্যই সিনেমা হলে আসে। আমাদের জন্য সবটাই এক। ক্যামেরার সামনে অভিনয়। যে চরিত্র পাই সেটা ফুটিয়ে তোলা। ফলে বলতে পারেন, এটা একটা ভাল ছবি।

আরও পড়ুন, ‘টলিউডের কোন ক্যাম্পে কী ক্যাম্পেনিং করতে হয় সেটাই বুঝি না’

বেশ। এই ভাল ছবির গল্পটা কেমন?
শুভশ্রী: গল্পটা বেসিক্যালি রমকম। রোম্যান্টিক, কমেডি, অ্যাকশন সব কিছু নিয়েই ফুল এন্টারটেনমেন্ট প্যাকেজ।

আর আপনার চরিত্র?
শুভশ্রী: আমার চরিত্রের নাম শ্রীজাতা। সে হাইলি অ্যাম্বিশাস। পড়াশোনার তাগিদে লন্ডনে একটা ছেলের সঙ্গে পরিচয় হয়। ভায়া ফেসবুক। বিয়ের দিনই শ্রীজাতা পালিয়ে যায় ছেলেটার ভরসাতে। কেমব্রিজ থেকে পিএইচডি করতে চায়। কিন্তু সেখানে গিয়ে দেখে ছেলেটা একেবারেই জালি। তার পর হিরো অর্থাত্ শাকিবের সঙ্গে পরিচয় হয়। এর পর কোনও একটা কারণে মেয়েটিকে ভারতে ফিরতে হয়, উইথ শাকিব। নানা রকম টার্নস অ্যান্ড টুইস্ট শুরু হয় ভারতে আসার পর। যেটা দেখতে হলে যেতে হবে।


‘চালবাজ’-এর একটি দৃশ্যে শাকিব-শুভশ্রী। ছবি: টুইটারের সৌজন্যে।



‘নবাব’-এর পর ফের শাকিবের সঙ্গে কাজ করলেন। আপনাদের কেমিস্ট্রি এ বার দর্শকদের নতুন কী দেবে?
শুভশ্রী: গল্পটা চেঞ্জ হলেই কেমিস্ট্রিতে নতুন অ্যাঙ্গেল আসে। ‘নবাব’ ডিফারেন্ট জনারের ছবি ছিল। এই ছবিতে দু’জনের ক্যারেক্টার বদলে গিয়েছে। ফলে কেমিস্ট্রিও বদলে গিয়েছে।

আচ্ছা, আপনার দেখা সেরা ‘চালবাজ’ কে?
শুভশ্রী: দেখুন, আমি চালবাজ হিসেবে কাউকে দেখি না। আসলে নেগেটিভ ওয়েতে কাউকে দেখতে পছন্দ করি না। কেউ যদি চালবাজি করেও সেটাকেও ইগনোর করি।

নিজে কখনও চালবাজি করেছেন?
শুভশ্রী: মজা করে হয়তো অনেক চালবাজি করেছি। কিন্তু অন আ সিরিয়াস নোট আই ডোন্ট লাইক চালবাজি। আমি খুব স্ট্রেট ফরোয়ার্ড গার্ল। কাউকে খুন করতে চাইলে মুখের ওপর বলে দেব। আমাকেও কেউ খুন করতে চাইলে মুখের ওপর বললে খুশি হব। আমি বরং বলব, গো ফর ইট।

আরও পড়ুন, ‘হয়তো রাজনীতির শিকার হয়েছি কোথাও...’

পয়লা বৈশাখে ‘চালবাজ’-এর সঙ্গে আরও কিছু বাংলা ছবি রিলিজ করবে। গত পুজোতেও এক সঙ্গে অনেক বাংলা ছবি রিলিজ করেছিল। আপনার কী মনে হয়, এতে ব্যবসা মার খায়?
শুভশ্রী: আসলে আমি কী মনে করলাম তার থেকেও বড় কথা, প্রোডিউসাররা কী মনে করছেন। যাঁরা ওই পজিশনে বসে আছেন প্রতিবারই এমন সিচুয়েশন হচ্ছে। ডেফিনেটলি কিছু ভেবেই করছেন।

বলিউডে কিন্তু একে অপরের জন্য রিলিজ ডেট স্যাক্রিফাইজ করেন। সেটা অডিয়েন্স দেখেছে।
শুভশ্রী: বলিউডের ট্রেন্ডটা টলিউডেও ডেফিনেটলি আসবে। সব কিছুই গ্রুম হতে একটু সময় লাগে। আমার মনে হয় এই সিস্টেমটা টলিউডেও আসবে। তবে দর্শকরা এখন ভীষণ স্মার্ট। পুজোয় এতগুলো ছবি এক সঙ্গে হ্যান্ডেল করেছেন, পয়লা বৈশাখে অডিয়েন্সের কাছে তিনটে ছবি কোনও ব্যাপারই নয়। ওঁরা ঠিক জানেন কোন সময় কোন ছবিটা দেখেবেন।


‘চালবাজ’ ছবির পোস্টারে শাকিব-শুভশ্রী। ছবি: টুইটারের সৌজন্যে।



তবুও ‘চালবাজ’ কেন দেখবেন? এর ইউএসপি?
শুভশ্রী: শুভশ্রী-শাকিব জুটির ‘নবাব’-এ ভাল রেসপন্স ছিল। সেই জুটি ইমিডিয়েটলি ব্যাক করছে। স্যাভির গান রয়েছে, জয়দীপদার ডিরেকশন। এ সবই ইউএসপি।

আপনার নেক্সট প্রজেক্ট?
শুভশ্রী: নেক্সট এখনও কিছু ফাইনাল হয়নি।

সেকি! রাজ চক্রবর্তীর ‘কাট-মুন্ডু টু কম্বোডিয়া’তে আপনি অভিনয় করছেন বলে খবর হয়েছে।
শুভশ্রী: ফ্রম মাই সাইড ইটস নট ফাইনাল। এখনও সই করিনি।

আরও পড়ুন, ‘জীবনে ঝড় এলেও আমি সেটা ওভারকাম করেছি’

আচ্ছা, এখন তো পরিচালকের সঙ্গে সংসার করছেন। তিনি আপনার কাজের ক্ষেত্রে পরামর্শ দেন?
শুভশ্রী: প্রশ্নটায় একটা ভুল আছে।

ভুল?
শুভশ্রী: হুম। পরিচালকের সঙ্গে সংসার নয়। সংসারটা একদম অন্য একজন মানুষের সঙ্গে। পরিচালকের সঙ্গে শুধু কাজ।

ওকে। ভুলটা বুঝলাম।
শুভশ্রী: হা হা…। আসলে ডিসিশন নিয়ে আমাদের কোনও ডিসকাশন হয় না। তবে অ্যাক্টিং নিয়ে অনেক জায়গায় ও হেল্প করে। মডিউলেশন নিয়ে অনেক জায়গায় বলে। আর যদি সেটা সমালোচনা হয় তা হলে আমার আরও ভাল লাগে।


রেজিস্ট্রির দিন রাজ-শুভশ্রী। ছবি: টুইটারের সৌজন্যে।



কেন?
শুভশ্রী: যেহেতু রাজ ডিরেক্টর, ও খুব ভাল করে পজিটিভ ওয়েতে সমালোচনা করতে পারে।

আপনি সমালোচনা করেন?
শুভশ্রী: আমি সেই জায়গাতেই নেই। তবে ফিডব্যাক দিই।

এখন তো বিয়ের অনুষ্ঠানের প্ল্যানিং চলছে।
শুভশ্রী: হুম, তা চলছে।

কে বেশি দায়িত্ব নিচ্ছেন, আপনি নাকি রাজ?
শুভশ্রী: দু’জনেই। তবে রাজ সত্যিই খুব ব্যস্ত। ওর নতুন ছবি শুরু হবে।

আরও পড়ুন, পুরনো প্রেম থেকে কী শিখলেন ইমন?

আপনি তো অলরেডি সব্যসাচী মুখোপাধ্যায়ের কাছে অর্ডার পাঠিয়ে দিয়েছেন।
শুভশ্রী: ইয়েস, আমার ব্রাইডাল লুকটা সব্যসাচী ডিজাইন করছেন।

আর বাকিগুলো?
শুভশ্রী: বাকিগুলো এখনও ডিসাইড হয়নি।

কেমন লুক সেট হচ্ছে?
শুভশ্রী: পুরো বাঙালি কনের মতোই সাজব। বেনারসি, চন্দন, গয়না…। এটা নিয়ে কিন্তু আর কিছু এখন বলব না।

রেজিস্ট্রির মতোই সারপ্রাইজ দিতে চান?
শুভশ্রী: ইয়েস, কিছুটা সারপ্রাইজ থাক…।

আরও পড়ুন

Advertisement