×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৩ জুন ২০২১ ই-পেপার

প্রতিহিংসামূলক আচরণ? ‘ভবিষ্যতের ভূত’ প্রদর্শন বন্ধে প্রশ্ন সৌমিত্রর

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ ১৮:৫১
প্রতিবাদে মঙ্গলবার অ্যাকাডেমি চত্বরে জমায়েত হয়েছিলেন শিল্পীরা।

প্রতিবাদে মঙ্গলবার অ্যাকাডেমি চত্বরে জমায়েত হয়েছিলেন শিল্পীরা।

মুক্তির পর চার দিন কেটে গিয়েছে। কিন্তু এখনও পর্যন্ত ভূতেদের ‘ভবিষ্যৎ’ অন্ধকারে। ‘ভবিষ্যতের ভূত’-এর প্রদর্শন বন্ধের প্রতিবাদেই মঙ্গলবার অ্যাকাডেমি চত্বরে জমায়েত হয়েছিলেন শিল্পীরা।

সেই জমায়েতে দাঁড়িয়ে অনীক বলেন, ‘‘বহু শিল্পী আমাকে ফোন করেছেন। সোশ্যাল মিডিয়াতেও অনেকে প্রতিবাদ করেছেন। সৌমিত্রদা কড়া ভাষায় চিঠি দিয়েছিলেন। আজ আমরা বলেছিলাম, আপনি আসতে পারলে ভাল হয়। আমরা ছবিটা সরিয়ে নেওয়ার কারণটা জানতে চাই। সিনেমাহলে যে সব দর্শক দেখতে গিয়েছিলেন তাঁদের বলা হয়েছে, হায়ার অথরিটির নির্দেশ। আরও নানান কথা বলা হয়েছে। কিন্তু কোনও লিখিত নির্দেশ দেখাতে পারেননি কেউ।’’

এ দিন অ্যাকাডেমি চত্বরে প্রতিবাদ সভায় উপস্থিত ছিলেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। শনিবারই তিনি চিঠিতে প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন। এ দিন বলেন, ‘‘আমার প্রথম থেকেই অদ্ভুত লাগছে। কখনও তো হয়নি এ রকম, হায়ার অথরিটি নাকি বলেছে এই ছবির বিষয় থেকে গোলযোগ তৈরি হতে পারে। এ তো যথেচ্ছাচার। এ ক্ষেত্রে কি কোনও প্রতিহিংসামূলক আচরণ কাজ করছে?’’

Advertisement

আরও পড়ুন, এটা কি মগের মুলুক? প্রশ্ন শিল্পী মহলে

অ্যাকাডেমির প্রতিবাদ সভা থেকে সব্যসাচী চক্রবর্তী প্রশ্ন তোলেন, ‘‘রিলিজের আগে ছবির বিষয় জানতে চেয়ে পুলিশের তরফে একটা চিঠি দেওয়া হয়েছিল। কনটেন্ট জানতে চাওয়ার মানে আপনি পুলিশের নজরে আছেন। তার মানে কি ভয় দেখানো? ক’দিন আগে ব্রিগেড থেকে এত গালাগালি করা হল, তাতে ভয় পেল না, আমাদের সিনেমাটা কি তার থেকেও ভয়ের? একটা সিনেমা কি রাজনৈতিক জমায়েতের থেকে বড় হতে পারে?’’ অভিনেতা সাহেব ভট্টাচার্য স্পষ্ট বলেন, ‘‘কারও খামখেয়ালী সিদ্ধান্তে, গায়ের জোরে কি সিনেমা বন্ধ হয়ে যেতে পারে? ট্রান্সপারেন্সি নেই আমাদের সমাজে।’’


প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখছেন কৌশিক সেন।



গত শনিবার অর্থাৎ মুক্তির পর দিনই অনীক দত্ত পরিচালিত ‘ভবিষ্যতের ভূত’ পশ্চিমবঙ্গের প্রায় সমস্ত হল থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছিল। এখনও সে ছবি সিনেমা হলে ফেরেনি। এমনকি হল থেকে সিনেমা সরিয়ে দেওয়ার প্রমাণ-সহ নির্দিষ্ট কোনও কারণ দেখাতে পারেননি হল কর্তৃপক্ষ।

সেন্সর বোর্ডের ছাড়পত্র পাওয়ার পর কোনও সিনেমা হল থেকে সরিয়ে নেওয়ার কোনও আইন নেই বলে দাবি করেছেন ‘ভবিষ্যতের ভূত’-এর টিমের একাধিক সদস্য। সে কারণেই এই ছবির প্রযোজক কল্যাণময় চট্টোপাধ্যায় বিভিন্ন হল মালিকদের কাছে সিনেমাটি সরিয়ে দেওয়ার সঠিক কারণ জানতে চেয়ে একটি লিখিত নোটিস পাঠিয়েছেন।

আরও পড়ুন, কেন তুলে নেওয়া হল ছবি? আইনের পথে ‘ভবিষ্যতের ভূত’

গোটা বিষয়টি নিয়ে ইম্পা এবং ফেডারেশনের সঙ্গেও যোগাযোগ করেছেন ছবির প্রযোজক এবং পরিচালক। অনীক আগেই জানিয়েছেন, আর্থিক ক্ষতির বিষয়টি মাথায় রেখে বিকল্প ভাবনা শুরু হয়েছে, তবে স্পষ্ট কোনও পরিকল্পনা এখনও হয়নি।

সৌমিত্র, সব্যসাচী ছাড়া বরুণ চন্দ, বাদশা মৈত্র, কৌশিক সেন, চান্দ্রেয়ী ঘোষের মতো এ ছবির সঙ্গে যুক্ত শিল্পীরা তো বটেই, ছবির সঙ্গে সরাসরি যুক্ত নন, এমন শিল্পীরাও হাজির হয়েছিলেন প্রতিবাদ সভায়। গোটা ঘটনায় বিভিন্ন মহলের মতে, সাময়িক আর্থিক ক্ষতি হলেও ছবিটি নিয়ে গন্ডগোল শেষ পর্যন্ত প্রচারেই সাহায্য করবে। কারণ, ‘নেগেটিভ পাবলিসিটি’ও এক রকম প্রচার।

(কোন সিনেমা বক্স অফিস মাত করল, কোন ছবি মুখ থুবড়ে পড়ল - বক্স অফিসের সব খবর জানতে পড়ুন আমাদের বিনোদন বিভাগ।)

Advertisement